প্রেস বিজ্ঞপ্তি:
১৯৯১ সালের ভয়াল ২৯ এপ্রিলকে জাতীয় দুর্যোগ ঘোষণা, টেকসই বেড়িবাঁধ, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনাকে পাঠ্যপুস্তকে সংযুক্তি, প্যারাবন উদ্ধারসহ নানাবিধ পরামর্শ ও আলোচনার মাধ্যমে দিবসটিকে স্মরণ করেছে ঢাকাস্থ কক্সবাজার সমিতি।

সমিতির সভাপতি স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ খোরশেদ আলমের পরিচালনায় এই ভার্চুয়াল আলোচনায় অংশ নেন সমিতির প্রধান উপদেষ্টা সাবেক সচিব আমম নাসির উদ্দিন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক বিশিষ্ট সাংবাদিক সন্তোষ শর্মা, কক্সবাজার প্রেসক্লাবের সভাপতি আবু তাহের, কক্সবাজারের জ্যৈষ্ঠ সাংবাদিক তোফায়েল আহমেদ, বাংলাদেশ টেলিভিশনের কক্সবাজার জেলা প্রতিনিধি জাহেদ সরওয়ার সোহেল, কক্সবাজার সমিতির সহ-সভাপতি জাতীয় শিক্ষা পরিচালনা একাডেমির পরিচালক মোস্তফা কামাল, সহ-সভাপতি ডাক্তার ইব্রাহিম খলিল প্রমুখ।

সভাপতির বক্তব্যের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দিন আহমেদ একানব্বইর উনত্রিশে এপ্রিলের ঘূর্ণিঝড়ের স্মৃতিচারণ করে এই দিনটিকে রাষ্ট্রীয়ভাবে স্বীকৃতি দেওয়ার গুরুত্ব তুলে ধরেন। বর্তমান প্রেক্ষাপটে দুর্যোগ মোকাবেলায় সরকারের বিভিন্ন প্রণিধানযোগ্য উদ্যোগকে তুলে ধরে তিনি বলেন প্রকৃত দুর্যোগ মোকাবেলায় সরকার দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা আইন হালনাগাদ করেছে। আইনের মাধ্যমে দুর্যোগ মোকাবেলাকে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। এছাড়া অবকাঠামো খাতের বিভিন্ন তৎপরতা অবগত করেন তিনি।

সাবেক সচিব আমম নাসির উদ্দিন দুর্যোগ মোকাবেলায় টেকসই বেড়িবাঁধ ও উপকূলীয় অঞ্চলে ব্যাপক বনায়ন গড়ে তুলার গুরুত্ব তুলে ধরেন।

কক্সবাজার প্রেসক্লাবের সভাপতি আবু তাহের চৌধুরী তার বক্তব্যে উপকূলীয় এলাকায় প্রশাসনের যানস্বল্পতাকে একটি সমস্যা হিসেবে চিহ্নিত করেন। তিনি পর্যাপ্ত সাইক্লোন সেন্টার স্থাপনে গুরুত্ব দেন। তিনি ঐসময় বাসসে কর্মরত অবস্থায় একমাত্র সচল ওয়্যারলেস দিয়ে বার্তাপ্রেরণের স্মৃতিচারণ করেন ।

সিনিয়র সাংবাদিক তোফায়েল আহমেদ তৎকালীন দৈনিক বাংলায় কর্মরত থাকাকালীন বিভিন্ন ঘটনা স্মৃতিচারণ করে বর্তমানে সাইক্লোনের মত রোহিংগা সমস্যাকেও দুর্যোগ হিসেবে চিহ্নিত করেন।

সাংবাদিক জাহেদ সরওয়ার সোহেল ২৯ এপ্রিলে জন্য তখন জাতীয় সংসদে কোন শোক প্রস্তাব হয়নি উল্লেখ করে এই দিনকে জাতীয় দুর্যোগ ঘোষণার পাশাপাশি ২৯ এপ্রিলকে রাষ্ট্রীয়ভাবে স্মরণ করার আহবান জানান।

এই আলোচনায় এছাড়া সংযুক্ত ছিলেন কক্সবাজার সমিতির সহ-সভাপতি বৃন্দ, সম্পাদক বৃন্দ ও সদস্যবৃন্দ। অনুষ্ঠানটি কক্সবাজারের ইলেক্ট্রনিক গণমাধ্যম টিটিএন সরাসরি সম্প্রচার করে।

পরে দু’আ পরিচালনা করেন কক্সবাজার সমিতির সহ-সভাপতি মোহাম্মদ মোস্তাকিম ও ভার্চুয়াল সভা সঞ্ছালনা করেন সমিতির প্রচার-প্রকাশনা সম্পাদক মোহিব্বুল মোক্তাদীর তানিম।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •