মোঃ নাজিম উদ্দিন, দক্ষিণ চট্টগ্রাম:

সাতকানিয়ায় সম্পত্তি দখল করতে না পেরে নিজের দুই ছেলে ও পুত্র বধুরা মিলে হাত-পা বেঁধে হত্যা চেষ্টা করেছে আহমদ উল্লাহ নামে এক বৃদ্ধকে। ঘটনাক্রমে বেঁচে গিয়ে বৃদ্ধ আহমদ উল্লাহ দু’ছেলে আবদুর রহিম(৩৫) ও আবদুল গফুর(২৮) এবং দু’পুত্র বধু রিফা আক্তার(২৮) ও শরমিন আক্তার(২২) কে বিবাদী করে সাতকানিয়া থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। ২৮ এপ্রিল বুধবার সকাল ১০টার সময় উপজেলার সোনাকানিয়া ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ড ছোট হাতিয়া কালা মিয়া পাড়া এলাকায় ঘটনাটি ঘটে।
থানায় দায়ের করা অভিযোগের বিবরনে জানা যায়, বৃদ্ধ আহমদ উল্লাহ দিন মজুরীর কাজ করে বহু কষ্টে দু’ছেলে লালন পালন করে বিদেশে পাঠান। বিদেশ থেকে বড় ছেলে আবদুর রহিমের পাঠানো এবং নিজের কষ্টার্জিত টাকা দিয়ে পৈত্রিক ভিটেই একটি পাকা ঘর নির্মান করেন। বর্তমানে দু’ছেলে বিদেশ থেকে দেশে ফিরে স্ত্রী’র প্ররোচনায় বসত ঘরের সামনের ফাঁকা উঠানে নতুন করে আরেকটি পাকা ঘর নির্মানে পাঁয়তারা শুরু করে। বিষয়টি বৃদ্ধ আহমদ উল্লাহ ভালভাবে গ্রহন করেননি। তিনি বাড়ির সামনের উঠান দখল করে নতুন ঘর নির্মানের বিপক্ষে অবস্থান নেন। এ নিয়ে দু’ছেলে ও পুত্র বধুদের সাথে বৃদ্ধ আহমদ উল্লাহর বিরোধ সৃষ্টি হয়। বিষয়টি নিয়ে লাগাতার ঝগড়া বিবাদ চলতে থাকে এবং অধিকাংশ সময় ছেলেরা পিতা বৃদ্ধ আহমদ উল্লাহকে মারধর করত বলেও অভিযোগ পাওয়া যায়। এ নিয়ে এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিদের নিয়ে দফায় দফায় শালিসী বৈঠক হয়। পরিবারের দু’পক্ষই স্ব-স্ব অবস্থানে অনড় থাকায় বিষয়টি অমীমাংসীত রয়ে যায়। ফলে দিন দিন পিতা এবং পুত্রদ্বয়ের মধ্যে বিরোধ আর দুরত্ব বাড়তে থাকে। বিরোধের এক পর্যায়ে গত বুধবার সকালে ঘুমন্ত পিতার শয়ন কক্ষে প্রবেশ করে দু’পুত্র আর পুত্র বধুরা মিলে হাত-পা বেঁধে এবং মুখে ষ্কচ টেপ লাগিয়ে দিয়ে হত্যার চেষ্টাকালে বৃদ্ধ আহমদ উল্লাহকে জরুরী কাজে খোঁজার জন্য এলাকার মৌলভী সমশুল আলম, হাজী মোক্তার আহমদ ও শাহ আলম বাড়িতে ঢুকলে বিষয়টি টের পেয়ে আহমদ উল্লাহকে উদ্ধার করেন।
এ ব্যাপারে অভিযুক্ত আবদুল গফুরের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঘটনার বিষয়টি অস্বীকার করেন বলেন, আমার পিতাকে হত্যার চেষ্টার বিষয়টি সঠিক নয়। আসল কথা হল আমার নির্মানাধীন বিল্ডিংয়ের মিস্ত্রিদেরকে বাবা গালিগালাজ করে এক পর্যায়ে রড নিয়ে মারতে যান। বাবার হাত থেকে রড কেড়ে নিতে গিয়ে হয়ত আঘাত লেগেছে।
স্থানীয় ইউপি সদস্য আবদুল কাদের জানান, জায়গা জমি নিয়ে পিতা পুত্রের মধ্যে বিরোধ চলার বিষয়টি সত্য। তবে হত্যার বিষয়টি আমার জানা নেই। আমি বর্তমানে যেহেতু এলাকার বাইরে সেহেতু বিষয়টি জেনে বলতে হবে।
সাতকানিয়া থানা অফিসার ইনাচর্জ আনোয়ার হোসেন বলেন, পিতা পুত্রের বিরোধের বিষয়ে একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে ঘটনার সত্যতার ভিত্তিতে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •