সাইদুল ইসলাম ফরহাদ :
সরকার ঘোষিত কঠোর বিধি-নিষেধের কিছু দিনেরমাথায় খুলে দেয়া হয়েছে দেশের সব শপিংমল ও দোকানপাট। স্বাস্থ্যবিধি মেনে এসব শপিংমল-দোকানপাট চলার কথা থাকলেও কক্সবাজার শহরের পান বাজার রোড় এলাকায় তা মানা হচ্ছে না। অধিকাংশ শপিংমলগুলোর প্রবেশপথে জীবাণুনাশকের ব্যবস্থা নেই।শপিংমলে নেই জীবাণুমুক্তের ব্যবস্থা, মাস্ক পরছেন না অনেকেই। তাতে করোনার ঝুঁকি থাকে।

বিক্রেতারাও ঠিকমতো হাত স্যানিটাইজ করছেন না। কেনাকাটা করতে আসাদের স্যানিটাইজের ব্যবস্থা করছেন না বা করতে উদ্বুদ্ধও করছেন না। এমনকি বিক্রেতাদের অনেকেই মাস্ক পরছেন না। শপিংমল খুলে দেয়ার প্রথম দিন কিছুটা মানলেও তার পরের দিন থেকে মানছে কেউ স্বাস্থ্যবিধি । আজ মঙ্গলবার পান বাজার ফজল মার্কেট, পৌরসভা মার্কেট, ছালাম মার্কেট সহ এলাকা ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে। কোরাল লীপ, আপন টাওয়ার, আবু মার্কেট, প্লাস পয়েন্ট, সালাম সহ বড় বড় শপিংমল গুলোতে প্রবেশপথে জীবাণুনাশকের ট্যানেল বসানো হয়নি। সেখানে কোনো ধরণের জীবাণুনাশকের ব্যবস্থা নেই। ফলে কোনো ক্রেতা যদি করোনার জীবাণু নিয়ে আসেন, তা নিয়েই বিনা বাধায় শপিংমলে যাওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন।
শপিং কমপ্লেক্সের এক জুতার দোকানি  দাবি করেন, তারা সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী স্বাস্থ্যবিধি মানার চেষ্টা করছেন। ক্রেতাদের স্যানিটাইজ করে দেয়ার ব্যবস্থা রেখেছেন এবং তাদেরকে তাগিদ দিচ্ছেন।

তবে প্রতিবেদনের বিষয়ে কথা বলার আগে যখন এই প্রতিবেদক তার দোকানের সামনে যান, তখন দোকানীকে মাস্ক ছাড়াই বসে থাকতে দেখা গেছে। তখন তার কাছাকাছি আরও কয়েকজন দোকানদার বসেছিলেন। তারাও মাস্ক ছাড়াই ছিলেন।

পান বাজার ফিরোজা শপিং কমপ্লেক্স, বাটা মার্কেটসহ সেখানকার অন্য কোনো দোকানে প্রবেশপথে স্যানিটাইজ করার কোনো ধরণের ব্যবস্থা চোখে পড়েনি।

এপেক্স শো রুমের প্রবেশপথে স্যানিটাইজের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে এবং যারা প্রবেশ করছেন তাদেরকে স্যানিটাইজ করানো হচ্ছে।
তাছাড়া ছালাম মার্কেটে দেখা অন্য শপিংমলগুলোয় প্রবেশপথে জীবাণুনাশকের কোনো ব্যবস্থা দেখা যায়নি। কোনো কোনো দোকানে গেলে স্যানিটাইজের ব্যবস্থা করা হলেও অধিকাংশ দোকানে সেই ব্যবস্থাটুকুও নেই।

তবে এর দোকানি শামীম কক্সবাজার নিউজ ডটকম (CBN)কে দাবি করেন, ‘ক্রেতাদের ক্ষেত্রে হ্যান্ডস্যানিটাইজার বাধ্যতামূলক। ২-৩ জনের বেশি ঢুকতে দিই না। স্যানিটাইজার আমরা নিজ হাতে ক্রেতাদের স্প্রে করে দিচ্ছি।’ তবে সেখানে কিছুক্ষণ অবস্থান করলে তার দাবির সত্যতা মেলেনি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •