আতিকুর রহমান মানিকঃ
কালবৈশাখী ও ঝড়ো হাওয়ায় ছাউনি উড়ে গিয়ে রোদে শুকাচ্ছে কক্সবাজার হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের চেয়ার টেবিল, আলমিরা, শেলফ, শ্রেণিকক্ষের টোলটেবিলসহ প্রয়োজনীয় আসবাবপত্র।
এতে প্রাতিষ্ঠানিক অনেক কাগজপত্র বৃষ্টির পানিতে ভিজে গেছে।
এছাড়াও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে আরো অন্যান্য অবকাঠামো।
এর ফলে চলমান করোনাকালীন আউটডোর চিকিৎসা সেবা ব্যাহত হচ্ছে।
গত ১৭ এপ্রিল সকালে বয়ে যাওয়া কালবৈশাখী ঝড়ো হাওয়া কক্সবাজার পৌরসভার ৫ নং ওয়ার্ডের এসএম পাড়াস্থ হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল কলেজ ভবনে আঘাত হানে। তখন প্রবল বাতাসের তোড়ে সেমিপাকা একাডেমিক ভবনের টিনের ছাউনি সম্পূর্ণ উপড়ে নীচে পড়ে যায়।
প্রভাষক ডাক্তার খায়ের আহমদ জানান, ঝড়োহাওয়ার কবলে প্রতিষ্ঠানের ২ লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। আসবাবপত্র খোলা আকাশে পড়ে আছে।
১৯৯৮ সালে প্রতিষ্ঠিত হওয়া জেলার একমাত্র এই হোমিওপ্যাথি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বর্তমানে তিনশতাধিক শিক্ষার্থী ডিপ্লোমা অব হোমিওপ্যাথিক মেডিসিন এন্ড সার্জারি (ডিএইচএমএস) কোর্সে অধ্যয়নরত আছেন।
এর পাশাপাশি সার্বক্ষণিক আউটডোর চিকিৎসা সেবাও চালু রয়েছে এখানে।
মেডিকেল কলেজ সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, প্রতিষ্ঠার পর থেকে ৩ লক্ষাধিক রোগী আউটডোর থেকে চিকিৎসা সেবা নিয়েছেন।
সাম্প্রতিক ঝড়ে ক্যাম্পাস ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় শিক্ষার্থী ও সেবাপ্রার্থী রোগীরা চরম বেকায়দায় পড়েছেন বলে জানিয়েছেন শিক্ষকরা।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •