অনলাইন ডেস্ক: রাজধানীর মহাখালীতে দেশের সবচেয়ে বড় ডিএনসিসি ডেডিকেটেড কোভিড-১৯ হাসপাতালের উদ্বোধন করা হয়েছে।

রোববার (১৮ এপ্রিল) দুপুরে এ হাসপাতালের উদ্বোধন করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

সূত্র জানায়, ১০০০ শয্যার ডিএনসিসি ডেডিকেটেড কোভিড-১৯ হাসপাতালটি পূর্ণাঙ্গ হলে রোগীদের জন্য ২১২টি আইসিইউ, ২৫০টি এইচডিইউ ও ৫৪০টি আইসোলোটেড হাই কেয়ার রুম থাকবে। ৫০০ জনেরও বেশি করোনা রোগীকে একসঙ্গে উচ্চ-প্রবাহের অক্সিজেন সরবরাহ করা যাবে। হাসপাতালটি পরিচালনা করবে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী।

এ হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা দিতে ১৩০ চিকিৎসক, ২০০ নার্স, ৩০০ কর্মী ও ১০০ জন সেনাবাহিনীর সদস্য থাকবে। এছাড়া ওষুধ, সরঞ্জামের ব্যবস্থা করছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

স্বাস্থ্য অধিদফতর সূত্র জানিয়েছে, করোনা চিকিৎসায় এটিই দেশের সবচেয়ে বড় হাসপাতাল। ডিএনসিসি কাঁচাবাজারের এক লাখ ৮০ হাজার ৫৬০ বর্গফুট আয়তনের ফাঁকা ভবনে এ হাসপাতাল কার্যক্রম চালু করা হয়েছে। এতদিন মার্কেটটিতে করোনার আইসোলেশন সেন্টার এবং বিদেশগামীদের করোনা পরীক্ষার ল্যাব হিসেবে ব্যবহৃত হতো। এখন করোনা হাসপাতালের কার্যক্রম শুরু হলেও পৃথকভাবে এ সেবা কার্যক্রম চলবে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন ডিএনসিসির মেয়র মো. আতিকুর ইসলাম, স্বাস্থ্য সচিব লোকমান হোসেন মিয়া, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম, সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের মহাপরিচালক (অপারেশন্স অ্যান্ড ট্রেনিং) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মঞ্জুর আহমেদ, ডিএনসিসি ডেডিকেটেড কোভিড-১৯ হাসপাতালে পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে এম নাসির উদ্দিন প্রমুখ।
– বাংলানিউজ

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •