ইমাম খাইর, সিবিএন:

অসৎ লোকের একটি সিন্ডিকেট গড়ে ওঠেছে। সেখানে সাংবাদিক নামধারীও রয়েছে। তারা পুলিশকে ব্যবহার করে একটা সুবিধা হাসিল করতে চায়। কিন্তু তারা পুলিশের কাছে প্রশ্রয় পাচ্ছে না। হীন উদ্দেশ্য চরিতার্থ করতে পারছে না।

মাঝেমধ্যে সাংবাদিক পরিচয়ে কিছু লোক আমার অফিসে আসে। ভুক্তভোগি নিয়ে আমার রুমে ঢুকে। জাস্ট ওকিলের কাজটা তারা করে। ভুক্তভোগিকে অভিযোগ বা সমস্যা বলতে না দিয়ে নিজেই বলতে থাকে। তখন আমি জিজ্ঞেস করি, ভুক্তভোগি আপনার কি হয়? জবাবে বলে ‘আমি সাংবাদিক।’  থানাসহ বিভিন্ন জায়গায় সাংবাদিকের পরিচয় দিয়ে অনেকে যায়। সুবিধা নেয়ার চেষ্টা করে। তবে, সবাই না। কিছু কিছু।

হয়তো কোন সুবিধা নিতে পারতেছে না। এই কারণে বিভ্রান্তি, অপবাদের অবতারণা করে।

মঙ্গলবার (৬ এপ্রিল) সন্ধ্যায় পুলিশ সুপারের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা তুলে ধরেন এসপি মো. হাসানুজ্জামান।

সাম্প্রতিক সময়ের নানা বিষয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার বলেন, সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে তারা এই মহান পেশাটাকে কলুষিত করছে। আদৌ তারা সাংবাদিক কিনা যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে। এরকম কিছু ঘটনা অফিসার ইনচার্জরা আমাকে জানিয়েছেন।

সাংবাদিকদের সহযোগিতা কামনা করে মো. হাসানুজ্জামান বলেন, সেবার মানসিকতা নিয়ে আমরা কাজ করছি। আপনারা আমাদের সহায়ক শক্তি। সঠিক তথ্যগুলো আপনারা তুলে ধরছেন। আমাদের কোন সদস্যও অন্যায়ে জড়িত থাকলে আমরা বিন্দুমাত্র ছাড় দিইনি। আপনারা দেখেছেন। প্রমাণ পেয়েছেন।

তিনি বলেন, আমরা যারা আপনাদের নিরাপত্তার জন্য দিনরাত কাজ করে যাচ্ছি, আমাদেরকে পৃষ্টপোষকতা করা, সঠিক তথ্য দিয়ে হেল্প করা, আমাদের ভাল কাজগুলো তুলে ধরার দায়িত্ব আপনাদের। আমাদের নিয়ে কেউ যদি বিকৃত তথ্য উপস্থাপন করে সেটাও তুলে ধরবেন আপনারা- এটি আমাদের প্রত্যাশা।

সঠিক তথ্য ও সংবাদগুলো তুলে ধরে জনমনের বিভ্রান্তি দূরীকরণে সাংবাদিকদের সহযোগিতা প্রত্যাশা করেছেন এসপি মো. হাসানুজ্জামান।

সংবাদ সম্মেলনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রফিকুল ইসলাম, সদর থানার ওসি শেখ মুনীর উল গীয়াসসহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।

 

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জেলা পুলিশের কর্মকর্তাদের হেয় করার অপচেষ্টা:
অদ্য ০৬ এপ্রিল ২০২১ খ্রিঃ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে Facebook এ প্রকাশিত ০২ (দুই)টি পোস্ট জেলা পুলিশ, কক্সবাজার-এর দৃষ্টি গোচর হয়।
Aminul Islam নামের Facebook ID থেকে কক্সবাজার সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ জনাব শেখ মুনীর উল গীয়াস এর বক্তব্যকে বিকৃতভাবে প্রকাশ করে বিভ্রান্তি ছড়ানোর অপপ্রয়াস চালানো হয়েছে। হেফাজতে ইসলামের সাম্প্রতিক কর্মকান্ড, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের নেতা-কর্মী ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্পর্কে কক্সবাজার সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ এর উদ্ধৃতি দিয়ে প্রকাশিত বক্তব্য বানোয়াট ও ভিত্তিহীন। এ বিষয়ে Facebook পোস্টে বর্ণিত আওয়ামীলীগ নেতা জনাব জাফর আলম বলেছেন যে, কক্সবাজার সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ জনাব শেখ মুনীর উল গীয়াস মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও আওয়ামীলীগের নেতাদের বিষয়ে কোন কথা বলেন নাই এবং এ বিষয়ে Facebook এ প্রচারিত পোস্ট প্রদানকারী ব্যক্তি Aminul Islam কে তিনি চিনেন না। তবে তৃতীয় কোন পক্ষ এটি করে থাকতে পারে মর্মে তিনি অবহিত করেন।
অপরপক্ষে মোহাম্মদ রবি নামের অন্য একটি Facebook ID থেকে হেফাজতে ইসলাম কর্তৃক সংঘটিত নাশকতার ঘটনায় রুজুকৃত মামলার আসামীদের বিষয়ে মহেশখালী থানার অফিসার ইনচার্জ জনাব মোঃ আব্দুল হাই এর ছবি ব্যবহার করে তার যে বক্তব্য পোস্ট করা হয়েছে তা বানোয়াট ও ভিত্তিহীন যা পোস্ট দাতার মনগড়া।
থানার অফিসার ইনচার্জগণের বক্তব্যকে ভিন্নভাবে এবং বিকৃতভাবে উপস্থাপনের ফলে জনগণের মধ্যে বিভ্রান্তি ছড়ায় এবং এর প্রতিক্রিয়ায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভিন্ন ব্যক্তির মন্তব্য পুলিশ কর্মকর্তাদের কর্তব্য পালনে প্রভাব ফেলে। বিধায় এহেন ভিত্তিহীন পোস্ট সম্পর্কে সকলকে সতর্ক থাকার জন্য অনুরোধ করা হলো। পোস্ট প্রদানকারীদের সঠিক পরিচয় জেনে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

পুলিশ সুপার
কক্সবাজার

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •