মোঃ রাসেল ইসলাম,বেনাপোল প্রতিনিধি:

করোনার দ্বিতীয় দিনেও সচল রয়েছে বেনাপোল বন্দর দিয়ে ভারত থেকে আমদানি রফতানি বানিজ্য। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছে সকল কার্যক্রম। বেনাপোল বন্দরে সীমিত আকারে পন্য লোড-আনলোড হচ্ছে। করোনার ভয়ে থেমে নেই বন্দরের শ্রমজীবি মানুষের কার্যক্রম।

মঙ্গলবার (৬ এপ্রিল) সকাল থেকে বেনাপোল বাজারে আনাগোনা বেড়েছে সাধারণ মানুষের। বাজার সহ শহরের বিভিন্ন এলাকায় টহল দিচ্ছে স্থানীয় প্রশাসন। লকডাউন নিশ্চিত করতে মাঠ পর্যায়ে কাজ করছে বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশ। এদিকে স্বাস্থ্যবিধি না মানায় আট জনকে জরিমানা করেছে শার্শা উপজেলা প্রশাসন। বেনাপোল ইমিগ্রেশন দিয়ে চলাচল করছে পাসপোর্ট যাত্রী। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ইমিগ্রেশন,কাস্টমসের কার্যক্রম চলছে। বেনাপোল ইমিগ্রেশনে দু’দেশের পাসপোর্ট যাত্রীদের করোনা পরীক্ষা করছে শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মকর্তারা। সন্ধ্যা ৬টার পর থেকে সাধারণ মানুষকে ঘরের বাইরে বের না হওয়ার জন্য উপজেলার সকল স্থানে মাইকিং করছে স্থানীয় প্রশাসন। উপজেলা প্রশাসনের পাশাপাশি বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশ কোভিড-১৯ মোকাবেলায় দিনভর কাজ করে চলেছে।

বেনাপোল পোর্ট থানার অফিসার ইনচার্জ মামুন খান জানান, করোনায় সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ কাঁচাবাজার। তাই কাঁচাবাজারকে সুরক্ষিত করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। করোনা প্রতিরোধের সম্ভাব্য সব সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে। বাজারে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতে পুরো বাজারে প্রতিনিয়ত বাজার কমিটি এবং পুলিশ টহল দিচ্ছে। সন্ধ্যা ৬টার পর মানুষকে ঘর থেকে বের না হয় তার জন্য শহরের সকল স্থানে প্রচার মাইকিং করা হচ্ছে। লকডাউন নিশ্চিত করতে উপজেলা প্রশাসনের সাথে আমরাও কাজ করছি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •