লন্ডন সংবাদদাতা:
বাংলাদেশের সর্বদক্ষিণের জেলা কক্সবাজারের লোনাজলে বেড়ে উঠা চকরিয়ার কৃতি সন্তান এমডি জামাল উদ্দিন চৌধুরী।শিক্ষা ও কর্মজীবনের প্রতিটি স্তরে অনন্য মেধা ও দক্ষতার স্বাক্ষর রাখা জনাব জামাল চৌধুরী বর্তমানে ইউনিভার্সিটি অব ‘ল’,লন্ডনে GDL Leading to BPTC কোর্সে অধ্যয়নরত আছেন।
চকরিয়া পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের এই কৃতি সন্তান চকরিয়া সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি, কক্সবাজার জেলায় সর্বোচ্চ নম্বর নিয়ে চকরিয়া কলেজ থেকে এইচএসসি এবং চট্টগ্রাম সরকারী কলেজ থেকে পদার্থ বিদ্যা বিষয়ে বিএসসি (সম্মান) এমএসসি ডিগ্রী অর্জন করেন।
পরবর্তীতে নিজ উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত কনষ্ট্রাকশন্স ফার্মের মাধ্যমে ব্যবসায়িক সফলতা অর্জন করেন। দীর্ঘ পথ পরিক্রমায় রাজনৈতিক পটপরিবর্তনে হঠাৎ ব্যবসায়িক ধস নামলেও তিনি ভেঁঙ্গে পড়েন নি, বরং পরিস্হিতি মোকাবিলা করে নিজের লালিত স্বপ্নকে বাস্তবায়ন ও প্রতিভাকে বিকশিত করার অভিপ্রায়ে ব্যারিস্টার হওয়ার সংকল্প নিয়ে ২০০৯ সালে লন্ডন পাড়ি জমান।
নিজ কর্মদক্ষতা ও যোগ্যতায় সাফল্যের সাথে পথ পাড়ি দেওয়া জামাল চৌধুরী ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারী মাসে লন্ডনের নাগরিকত্ব অর্জন করেন।
ব্যয়বহুল হওয়ার কারণে এবং সাধ ও সাধ্যের সমন্বয় না হওয়ায় ব্যারিস্টার হতে না পারলেও পৃথিবীখ্যাত বিদ্যাপীঠ University of Sunderland, UK থেকে International Tourism and Hospitality Management এর উপর এমএসসি ডিগ্রী অর্জন করেন।কিন্তু জামাল চৌধুরী জীবনে পরাজিত হওয়ার পাত্র নন।
লন্ডনে নাগরিকত্ব অর্জনের পরে, নিজের একাগ্রতা ও কর্মদক্ষতা দিয়ে ব্যারিষ্ঠার হওয়ার স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করার জন্য লন্ডন সরকারের সম্পুর্ণ অর্থায়নে University of Law, London এ GDL Leading to BPTC অধ্যয়ন করছেন। পড়াশুনার পাশাপাশি তিনি লন্ডনে ETM গ্রুপের Executive director হিসেবে কর্মরত আছেন।
উল্লেখ্য, জামাল চৌধুরী লন্ডনে নাগরিকত্ব লাভের পর আয়েশী জীবনের পরিবর্তে দেশ মাতৃকার টানে ও দেশের অর্থনীতিকে আরও সমৃদ্ধ করার মানসে হাউজিং শিল্প, নির্মাণ শিল্প, সফটওয়্যার ও জনশক্তি রপ্তানীখাতে বিনিয়োগ করার জন্য নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন তার নিজস্ব ব্যবসায়িক প্রতিষ্টান Implement Group of Companies এর মাধ্যমে।
এছাড়া তিনি চট্রগ্রাম চেম্বার অব কমার্সের সদস্য এবং এফবিসিসিআই এর সদস্য হিসেবে অন্তর্ভুক্তির জন্য আবেদন করেছেন। আলহাজ্ব সামশুল আলম সওদাগর ও আলহাজ্ব মাহমুদা বেগমমর পাঁচ পুত্র সন্তানের মধ্যে জামাল চৌধুরী প্রথম।
চার ভাইয়ের মধ্যে দ্বিতীয়জন চট্রগ্রামের সফল ব্যবসায়ী, তৃতীয়জন সিভিল ইজ্ঞিনিয়ার হিসেবে সরকারী চাকুরীরত, চতুর্থজন লন্ডনে বসবাসরত সফটওয়্যার ইজ্ঞিনিয়ার ও ৫মজন বিসিএস ক্যাডার হিসেবে কর্মরত।
লন্ডনে থাকলেও দেশমাতৃকা ও এলাকার মানুষের প্রতি ভালবাসার কারণে তিনি বিভিন্ন মসজিদ, মাদ্রাসা, এতিমখানা ও সমাজের পিছিয়েপড়া দরিদ্র জনগোষ্টির প্রতি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন। সম্প্রতি করোনা মহামারীর সময়ও চকরিয়ার মানুষের প্রতি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন।
ব্যক্তিজীবনে তিনি সজরু জামাল চৌধুরীর এর সাথে বৈবাহিক বন্ধনে আবদ্ধ হন। স্বামীর মতোই স্ত্রীও University of Sunderland, London থেকে এমবিএ করেন। এক কন্যা ও দুই পুত্র সন্তান নিয়ে লন্ডনের সুখী সংসার।
এ প্রসঙ্গে চানতে চাইলে জামাল চৌধুরী বলেন, আগামী তরুণ প্রজন্মের জন্য আধুনিক বাসযোগ্য স্বপ্নের চকরিয়া বিনির্মানে কাজ করতে চাই। যে চকরিয়া হবে ১০০% সুশিক্ষায় শিক্ষিত, আধুনিক প্রযুক্তি নির্ভর, সন্ত্রাস ও মাদকমুক্ত।
পাশ্চাত্যের আদলে মডেল চকরিয়া গড়তে নিরলস পরিশ্রম এবং পরিকল্পনার কথা দৃঢ় পুণর্ব্যক্ত করেন মি. জামাল।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •