সিবিএন ডেস্ক:
মুশফিকুল হাসান মাহিন ১৮ বছরের টগবগে কিশোর। সম্প্রতি সিএমপি স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেছে। শুক্রবার মেডিকেলের ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেয়ার কথা থাকলেও সে পরীক্ষায় অংশ নেয়নি। সে কারণে বকা দেন তার পুলিশ পিতা। সেই বকার জের ধরে অভিমানে নিজ কক্ষে পিতার সরকারি পিস্তল দিয়ে বুকে চালিয়েছে গুলি। পরিনাম আত্মহত্যার মাধ্যমে তার জীবনের সমাপ্তি।

শুক্রবার (২ এপ্রিল) জুমার নামাজের পর এভাবেই আত্মহননের পথ বেছে নেয় মাহিন নামের এ কিশোর। সে সিএমপির খুলশী থানার এসআই মহিম উদ্দীনের ছেলে। এসআই মহিমের গ্রামের বাড়ি নোয়াখালী হলেও তারা আকবর শাহ থানার মিরপুর আবাসিক এলাকার নিজস্ব ভবনে থাকতেন।

সিএমপির সিনিয়র সহকারি কমিশনার (পাহাড়তলী) আরিফ হোসাইন বলেন, ‘সদ্য এইচএসসি পাস করা মাহিনকে তার পিতা পড়ালেখা নিয়ে নামাজের আগে বকা দেন। সবাই জুমার নামাজে যায় তখন রুমের দরজা বন্ধ করে পিতার সরকারি পিস্তল দিয়ে নিজ বুকে একটি গুলি করে। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। এরপরও প্রতিবেশিরা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়। লাশ বর্তমানে হাসপাতালের মর্গে আছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘এখন সরকারি অস্ত্র দিয়ে একজনের মৃত্যু হওয়ায় এসআই মোমিনের বিরুদ্ধে কি সিদ্ধান্ত আসে সেটা সিনিয়র স্যাররা সিদ্ধান্ত দিবেন৷ এ সংক্রান্ত একটি তদন্ত কমিটি হবে। ইতোমধ্যে আমরা গুলির খোসা, রক্তমাখা বেড বালিশ অস্ত্র জব্দ করেছি।’

আকবর শাহ থানার ওসি জহির উদ্দীন বলেন, ‘বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। আমরা এ ঘটনার কারণ ও ঘটনা সম্পর্কে জানার চেষ্টা করছি।’ – সিভয়েস

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •