সিবিএন ডেস্ক:

“জাতীয় মৈত্রীর মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার চেতনাকে ধরে রাখতে হবে। এরজন্য সততা, মমতার চর্চা সর্বমহলে প্রয়োজন।“ স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে কক্সবাজার সমিতির ভার্চুয়াল আলোচনায় প্রধান আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখতে গিয়ে এই মন্তব্য করেন কক্সবাজারের কৃতি সন্তান, জাতিস্বত্বার কবি, সমিতির উপদেষ্টা মুহাম্মদ নুরুল হুদা।

এই ভার্চুয়াল আলোচনায় সভাপতিত্ব করেন সমিতির সভাপতি হেলালুদ্দিন আহমেদ। সূচনা বক্তব্যে তিনি জাতির জনকের অবদানকে গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন। তিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জনের পথে সকল শহীদদের আত্মার মাঘফেরাত কামনা করেন। তিনি বলেন, জাতির জনকের স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার লক্ষ্যে বাংলাদেশ আজ বিশ্বের বুকে মাথা তুলে দাঁড়াতে পেরেছে। তিনি আরো বলেন, জাতির জনক নিজের জীবনকে বিপন্ন করে তিনি আমাদের রক্ষা করে গিয়েছেন।

সাধারণ সম্পাদক খোরশেদ আলম সভায় উপস্থিত সকলকে কৃতজ্ঞতা জানান। তিনি বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে কক্সবাজার সমিতি গর্বিত। জাতির জনকের জন্মশতবার্ষিকীতে তিনি এই মহান নেতাকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন।

প্রধান আলোচকের আলোচনায় কবি নুরুল হুদা ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ ভাষণের ব্যক্তিগত স্মৃতিচারণ করেন। তিনি বলেন, “৭ ই মার্চের ভাষণ সর্বযুগের সর্বশ্রেষ্ঠ রাজনৈতিক কবিতা”। তিনি ঐদিন ওসময়ের বিশিষ্ট আরো লেখক সহ ‘প্রতিরোধ’ নামের পত্রিকা বের করার কথা উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, “বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সমগ্র বাংগালি জাতির ত্রাতা। তাইতো তিনি পিতা। জাতির পিতা।“ ২৫ শে মার্চ কালোরাতের শহীদ এ টি এম জাফর আলমকে স্মরণ করে তাঁকে নিয়ে স্বরচিত কবিতা আবৃত্তি করেন কবি নুরুল হুদা। ১৯৭১ এ শহীদ হওয়া কক্সবাজারের শহীদদের স্মরণে ইতিহাসভিক্তিক প্রকাশনা বের করার প্রস্তাব করেন তিনি।

এই ভার্চুয়াল আলোচনায় কক্সবাজার সমিতির নির্বাহী পরিষদের সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। সদস্যদের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন অর্থ সম্পাদক শওকত উসমান চৌধুরী, সহ-সভাপতি আবুল কাশেম ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আনিস উল মাওয়া আরজু।

সঞ্চালনা করেন প্রচার-প্রকাশনা সম্পাদক মোহিব্বুল মোক্তাদীর তানিম।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •