ইমাম খাইর, সিবিএন:
স্মরণকালের ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্ত উখিয়ার বালুখালির ৮ ও ৯ নম্বর ক্যাম্পে ২,৩০০ পরিবারকে শুকনো খাবার দিয়েছে রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি।
এছাড়া ক্ষতিগ্রস্ত স্থানীয় ২০০ পরিবারের মধ্যেও এসব সামগ্রী বিতরণ করা হয়।
শুক্রবার ও শনিবার এই দুইদিনে পরিবারপ্রতি খাদ্য প্যাকেজ (পাউরুটি, বিস্কুট, বাদাম, মুড়ি, গুড় ও পানি) বিতরণকালে শীর্ষ কর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
দাতা সংস্থাটির অফিস সুত্র জানিয়েছে, ইতোমধ্যে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মধ্যে আরআরআরসি কার্যালয়ের সাথে ৮০০ তাবু স্থাপন, আইওএম এর সাথে ১১,০০০ ত্রিপল, ১১,০০০ মশাড়ি ও ২৫০ কম্বল বিতরণ করা হয়েছে।
বাংলাদেশ সরকারের সহযোগী সংগঠন হিসেবে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির (বিডিআরসিএস) কর্মী ও স্বেচ্ছাসেবকরা এসব মানবিক কাজে নিরলস নিয়োজিত রয়েছে।
এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির কক্সবাজারের হেড অব অপারেশন এম. এ. হালিম বলেন, “আমাদের কর্মী ও সেচ্ছাসেবকগণ এখনো পুনর্বাসন ও ত্রাণ সরবরাহের কাজ করে যাচ্ছে। আমাদের সহযোগী ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অব রেড ক্রস এন্ড রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটিস (আইএফআরসি)এবং অন্যান্য দেশের রেড ক্রস রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটিসমূহ আমাদের সাথে একই মাত্রায় সহযোগিতা করে যাচ্ছে। ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে জরুরি খাবার, আশ্রয়ন সামগ্রী ও স্বাস্থসেবা নিয়ে আমরা সকলে একযোগে কাজ করছি। কক্সবাজারে নিয়োজিত সকল মানবিক সংস্থাসমূহ একত্রে কাজ করে আশা করছি অতি শীঘ্রই এই বিপদ থেকে উত্তরণ সম্ভব।”
শুক্রবার রেড ক্রিসেন্টের প্রাথমিক স্বাস্থসেবা কেন্দ্রে অগ্নিদগ্ধ ও অন্যান্য আহত আরো ২৬ জন চিকিৎসা গ্রহণ করেন। অগ্নিকাণ্ডের ভয়াবহতায় মানসিকভাবে অনেকেই বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে; তাই ক্ষতিগ্রস্ত এসব পরিবারে রেড ক্রিসেন্ট এর প্রশিক্ষিত স্বেচ্ছাসেবীগণ মনোসামাজিক প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে যাচ্ছেন। প্রাথমিক চিকিৎসাকেন্দ্রের পাশাপাশি এখন স্বেচ্ছাসেবীরা বাড়ি বাড়ি গিয়েও এই সেবা দিচ্ছে।
অগ্নি নির্বাপন ও উদ্ধারকাজে প্রাথমিক পর্যায়ের সাড়াদানকারীদের মধ্যে রেড ক্রিসেন্ট কর্মী ও স্বেচ্ছাসেবকদের (ক্যাম্প ও সিপিপি) ভূমিকা ক্ষতিগ্রস্তরা প্রশংসা করছেন।
১৯৯১ থেকে পরিচালিত বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির মিয়ানমার রিফিউজি রিলিফ অপারেশন (এম আর আর ও) কার্যক্রম ও ২০১৭ সালে শুরু হওযা চলমান পপুলেশন মুভমেন্ট অপারেশনের অংশ হিসাবে, বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি, আইএফআরসি এবং অন্যান্য দেশের রেড ক্রস রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির সহায়তায় ক্যাম্পে বসবাসকারী এবং স্থানীয় জনগোষ্ঠীর উভয়কেই স্বাস্থ্যসেবা, পরিচ্ছন্নতা ও স্বাস্থ্যবিধি; আশ্রয়ন, জীবিকা ও মৌলিক চাহিদা এবং দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাস কার্যক্রমের পাশাপাশি নারী ও সর্বাধিক ঝুঁকিগ্রস্ত সম্প্রদায়ের সুরক্ষা সহায়তা কার্যক্রম পরিচালনা করছে। ২০১৭ সালে অপারেশন শুরু থেকে এ যাবৎ, বিডিআরসিএস প্রায় দশ লক্ষ মানুষকে মানবিক সহায়তা প্রদান করেছে।

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •