অনলাইন ডেস্ক : চট্টগ্রামের পটিয়া থানায় কওমি মাদরাসার ছাত্রদের একটি মিছিল থেকে হামলার ঘটনা ঘটেছে। হাটহাজারীতে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে হেফাজতে ইসলামের চার কর্মী নিহতের প্রতিবাদে এই মিছিল বের করা হয়েছিল। পটিয়া থানায় হামলার মাদরাসার ছাত্ররা প্রায় একঘন্টা চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে।

শুক্রবার (২৬ মার্চ) বিকেলে আল জামেয়া আল ইসলামিয়া জমিরিয়া মাদরাসার ছাত্ররা এই হামলা চালায় বলে জানিয়েছেন পটিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল করিম।

এর আগে, শুক্রবার দুপুরে চট্টগ্রামের হাটহাজারী থানা, ভূমি অফিস এবং সরকারি ডাকবাংলোতে হামলার পর দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম মাদরাসার ছাত্রদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়। এসময় ‍গুলিবিদ্ধ চারজনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আনার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, হাটহাজারীর ঘটনার খবর পেয়ে বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে পটিয়ার আল জামেয়া আল ইসলামিয়া জমিরিয়া মাদরাসার ছাত্ররা বিক্ষোভ মিছিল বের করে। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বিরুদ্ধে স্লোগান দিয়ে মিছিল যাবার সময় পটিয়া থানা লক্ষ্য করে ইট-পাথরের টুকরা নিক্ষেপ করা হয়। এসময় পুলিশ থানার মূল ফটক বন্ধ করে রাখে।

ওসি রেজাউল করিম সারাবাংলাকে বলেন, ‘মাদরাসার ছাত্ররা মিছিল বের করেছিল। তাদের হাতে লাঠি, ইট, পাথরের টুকরা ছিল। থানার গেইটে আসার পর মিছিল থেকে হঠাৎ থানা লক্ষ করে ইট-পাথরের টুকরা ছুড়ে মারা হয়। আমাদের বাউন্ডারি ওয়ালে থাকা লাইট, থানা কম্পাউন্ডের লাইট ভাঙচুর করা হয়েছে। তবে মিছিলে থাকা সিনিয়ররা নিজেরাই আবার হামলাকারীদের নিবৃত্ত করেন।’

এদিকে থানায় হামলার পর ডাকবাংলোর সামনে মহাসড়কে বসে অবরোধ করেন মাদরাসার ছাত্ররা। এতে প্রায় এক ঘন্টা মহাসড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ ছিল বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন। পরে মাদরাসার ছাত্ররা সড়ক থেকে সরে যান।

এ ঘটনার প্রতিবাদে পটিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ মিছিল-সমাবেশ করেছে। – সারা বাংলা

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •