সিবিএন ডেস্ক:
মিয়ানমারে চলমান জান্তাবিরোধী বিক্ষোভ থেকে আটকের পর কয়েকশ বন্দি মুক্তি পেয়েছে। আজ বুধবার এই কারাবন্দিদের মুক্তির দিনে দেশটির অন্যতম প্রধান শহর ইয়াঙ্গুনে চলছে অভ্যুত্থানবিরোধীদের ডাকা নীরব ধর্মঘট। এ কারণে শহরের ব্যবসা-বাণিজ্য কার্যত বন্ধ রয়েছে। শহরের রাস্তা-ঘাটও জনমানবহীন। বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ খবর জানিয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, আজ বুধবার দেশটির বৃহত্তম শহর ইয়াঙ্গুনের একটি কারাগার থেকে কয়েকশ বন্দিকে মুক্তি দেওয়া হয়।

রয়টার্স জানায়, এদিন সকালে কয়েকটি বাসে করে বন্দিদের ইনসেইন কারাগার থেকে বের করা হয়। তবে ঠিক কতজন বন্দি মুক্তি পেয়েছে, সে বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেনি জান্তা কর্তৃপক্ষ।

সামরিক বাহিনীর নেতৃত্বে রক্তপাতহীন অভ্যুত্থানের মাধ্যমে নির্বাচিত সরকারকে উৎখাতের পর থেকে মিয়ানমারে জান্তাবিরোধী তুমুল বিক্ষোভ চলছে। সেনা অভ্যুত্থানের অবসান ও দেশটির নেত্রী অং সান সু চিসহ সামরিক বাহিনীর হাতে আটক রাজনৈতিক নেতাদের মুক্তির দাবিতে রাজপথে রয়েছে দেশটির গণতন্ত্রপন্থি সাধারণ জনগণ।

এদিকে বিক্ষোভকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিয়েছে জান্তাবাহিনী। প্রায় প্রতিদিনই প্রাণহানির খবর মিলছে। নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে আজও সাত বছর বয়সী একটি শিশু নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। সর্বশেষ নিহত সাত বছরের খিন মিয়ো চিটই এখন পর্যন্ত সবচেয়ে কম বয়সী।

শিশু অধিকারবিষয়ক সংস্থা সেইভ দ্য চিলড্রেন জানিয়েছে, মিয়ানমারে বিক্ষোভ শুরু হওয়ার পর থেকে নিরাপত্তা বাহিনীর হাতে নিহতদের মধ্যে অন্তত ২০টি শিশু ছিল।

মিয়ানমারের সামরিকবাহিনীর তথ্য অনুযায়ী, বিক্ষোভে ১৬৪ জন নিহত হয়েছে। কিন্তু, রাজনৈতিক বন্দিদের অধিকারবিষয়ক একটি বেসরকারি সংস্থা বলছে, নিহতের সংখ্যা অন্তত ২৬১।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •