সিবিএন ডেস্ক:
সরকারের বিভিন্ন অধস্তন অফিসগুলোতে সরকারি পদনাম ও পদবি ব্যবহার করা হচ্ছে। এতে রাষ্ট্রের সিনিয়র কর্মকর্তাদের পদনাম ও পদবি অবমূল্যায়িত হচ্ছে বলে অভিযোগ দীর্ঘদিনের। এমন অভিযোগের পর অধস্তন অফিসগুলোর পদনাম ও পদবি সৃজনের ক্ষেত্রে পদনাম ও পদবি ব্যবহার না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। বিষয়টি উল্লেখ করে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এরই মধ্যে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়কেও পত্র দেওয়া হয়েছে। ফলে অধস্তন যেসব অফিসে সরকারি পদনাম ও পদবি রয়েছে সেসব পদনাম ও পদবির পরিবর্তন আনা হচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, অধস্তন অফিসগুলোতে সরকারি পদনাম ও পদবি ব্যবহারের বিষয়ে গত বছরের ২৩ অক্টোবর মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে স্থানীয় সরকার বিভাগকে একটি পত্র দেওয়া হয়। তাতে স্থানীয় সরকার বিভাগের অধস্তন অফিসের পদনাম ও পদবি সৃজনের ক্ষেত্রে সরকারি পদনাম ও পদবি- সচিব, উপ-সচিব, যুগ্ম-সচিব, অতিরিক্ত সচিব, সচিব ও সিনিয়র সচিব যেন ব্যবহৃত না হয় তা উল্লেখ করা হয়।

এসব পদনামের পরিবর্তে অন্য কোনও পদনাম ব্যবহার বিষয়ে করণীয় নির্ধারণের জন্য স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমদের সভাপতিত্বে গত ২০ মার্চ একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভার সিদ্ধান্তগুলো উল্লেখ করে গত ২২ মার্চ স্থানীয় সরকার বিভাগের (পৌর-১ শাখা) উপ-সচিব মোহাম্মদ ফারুক হোসেন দেশের সকল ওয়াসা, সিটি করপোরেশন, পৌরসভা, জেলা পরিষদ ও ইউনিয়ন পরিষদকে চিঠি দেন।

ওই সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী ও খুলনা ওয়াসার বর্তমান পদ ‘সচিব’ এর পরিবর্তে ‘জেনারেল ম্যানেজার’, ‘উপ-সচিব’ এর পরিবর্তে ‘ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার’ ও ‘সহকারী সচিব’ এর পরিবর্তে ‘অ্যাসিস্ট্যান্ট জেনারেল ম্যানেজার’ প্রস্তাব করা হয়।

সিটি করপোরেশনগুলোর ‘সচিব’ পদের পরিবর্তে ‘নির্বাহী কর্মকর্তা’, ‘উপ-সচিব’ এর পরিবর্তে ‘ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার’, ‘সহকারী সচিব’ এর পরিবর্তে ‘সহকারী জেনারেল ম্যানেজার’ এবং ‘ওয়ার্ড সচিব’ এর পরিবর্তে ‘সহকারী প্রশাসনিক কর্মকর্তা’ প্রস্তাব করা হয়।

পৌরসভার বর্তমান পদ ‘সচিব’ এর পরিবর্তে ‘পৌর নির্বাহী কর্মকর্তা’; জেলা পরিষদের বর্তমান পদ ‘সচিব’ এর পরিবর্তে ‘নির্বাহী কর্মকর্তা’ এবং ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান পদ ‘সচিব’ এর পরিবর্তে ‘ইউনিয়ন প্রশাসনিক কর্মকর্তা’ হিসেবে প্রস্তাব করা হয়।

এই পদনাম ও পদবিগুলোর বিষয়ে কোনও মতামত থাকলে আগামী ৩১ মার্চের মধ্যে তা প্রদানের জন্য সংশ্লিষ্ট দফতর ও প্রতিষ্ঠানগুলোকে চিঠি দেওয়া হয়। উল্লেখিত তারিখের মধ্যে কোনও মতামত পাওয়া না গেলে প্রস্তাবিত পদনামের বিষয়ে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোর কোনও মতামত নেই বলে ধরে নেওয়া হবে বলে উল্লেখ করা হয়।

জানতে চাইলে স্থানীয় সরকার বিভাগের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানান, অধস্তন অফিসগুলোতে সরকারি পদনাম ও পদবির আদলে বিভিন্ন পদনাম ও পদবি রয়েছে। এই পদনাম ও পদবিগুলো সরকারি পদনাম ও পদবির জন্য অবমূল্যায়ন করছে— দীর্ঘদিন এমন অভিযোগ উঠে আসছে। সে প্রেক্ষিতে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে আমাদেরকে ওই সব পদনাম ও পদবি যাতে ব্যবহার করা না হয় সে বিষয়ে পত্র দেওয়া হয়। এরপর আমরা এমন উদ্যোগ নিয়েছি।

জানতে চাইলে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের সিস্টেম এনালিস্ট মো. আবু তৈয়ব রোকন বলেন, আমরা এমন একটি পত্র পেয়েছি। পত্রে আগামী ৩১ মার্চের মধ্যে বর্তমান পদনাম ও পদবির পরিবর্তে নতুন যেসব পদনাম ও পদবি প্রস্তাব করা হয়েছে সে বিষয়ে মতামত জানাতে বলা হয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •