মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

মঙ্গলবার, ১৬ মার্চ। সময় বেলা ১ টা ১৫ মিনিট। কক্সবাজারের সন্তান শিক্ষানবিশ পাইলট নাহিদ এরশাদ নয়ন (২২) এবং বাংলাদেশ ফ্লাইং একাডেমির তার প্রশিক্ষক ক্যাপ্টেন মাহফুজ সহ একটি প্রশিক্ষণ বিমান রাজশাহী শাহ মখদুম (রহ:) বিমানবন্দর থেকে উড্ডয়ন করে মুক্ত আকাশে উড়ছিলেন। হঠাৎ প্রশিক্ষণ বিমানটিতে যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা দেয়। এক ঘন্টা আকাশে উড়ার পর বিমানটি যান্ত্রিক ক্রুটির কারণে রাজশাহীর তানোর উপজেলায় তালন্দ ইউনিয়নের লালপুর গ্রামের একটি আলুক্ষেতে জরুরী অবতরন করে বেলা ২ টা ২০ মিনিটে। অবতরনের সময় সামনের চাকা ভেঙে গিয়ে বিমানটি উল্টে যায়।

সিভিল এভিয়েশনে দীর্ঘদিন কর্মরত একজন অভিজ্ঞ উর্ধ্বতন কর্মকর্তার এ প্রশিক্ষণ বিমান দুর্ঘটনা সম্পর্কে বক্তব্য হলো-যান্ত্রিক ক্রুটি দেখা দেওয়ার সাথে সাথে প্রশিক্ষণ বিমানটিতে আগুন ধরে সব শেষ হয়ে বিধ্বস্ত হয়ে যাওয়ার কথা। তা নাহলেও বিমানটি জরুরী অবতরণের সাথে সাথে আগুনে পুড়ে চাই যাওয়ার কথা। কিন্ত প্রশিক্ষণ বিমানটিতে আগুন না লেগে জরুরী অবতণের সময় শুধু উল্টে গেছে। শিক্ষানবিশ পাইলট নাহিদ এরশাদ নয়ন ও প্রশিক্ষক ক্যাপ্টেন মাহফুজ সামান্য আহত হলেও প্রায় অক্ষত ছিলেন। অথচ প্রশিক্ষণ বিমানটিতে আগুন লাগলে শিক্ষানবিশ পাইলট নাহিদ এরশাদ নয়ন ও প্রশিক্ষক ক্যাপ্টেন মাহফুজও সে আগুনের ভয়াবহ শিকার হতেন।

প্রশিক্ষণ বিমানটিতে আগুন নালেগে জরুরী অবতরনের সময় উল্টে গেলেও শিক্ষানবিশ পাইলট নাহিদ এরশাদ নয়ন ও প্রশিক্ষক ক্যাপ্টেন মাহফুজ প্রায় অক্ষত থাকায় সিভিল এভিয়েশনে দীর্ঘদিন কর্মরত উক্ত উর্ধ্বতন কর্মকর্তার মনে হয়েছে, ‘মহান আল্লাহতায়লা স্বয়ং তাদের নিজ কুদরতীর হাতে সুরক্ষা করেছেন। এটাই আল্লাতায়লার অসীম রহমত, সীমাহীন কুদরতের নমুনা।’

প্রশিক্ষণ বিমানটি দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধানের জন্য সিভিল এভিয়েশন কর্তৃপক্ষ একইদিন ৩ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে। এ তদন্ত কমিটিতে প্রয়োজনীয় তথ্য উপাত্ত ও সাক্ষ্য দিতে, সরেজমিনে দুর্ঘটনাস্থলে পরিদর্শন করতে কক্সবাজারের সন্তান শিক্ষানবিশ পাইলট নাহিদ এরশাদ নয়ন’কে গত ২০ মার্চ পর্যন্ত রাজশাহীতে থাকতে হয়েছে। গত ২১ মার্চ নাহিদ ঢাকায় এসে তার প্রশিক্ষণ কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশ ফ্লাইং একাডেমিতে রিপোর্ট করে ২২ মার্চ বাড়িতে আসে।

কক্সবাজারের রামু উপজেলার রশিদনগর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক মেম্বার, পানিরছরা গ্রামের বাসিন্দা মোহাম্মদ হান্নান ছিদ্দিকী ও সমাজকর্মী মোমেনা আক্তার এর জ্যেষ্ঠ সন্তান নাহিদ এরশাদ নয়ন রোববার ২২ মার্চ কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কের রশিদ নগর মামুনমিয়ার বাজার বটতলী স্টেশনে পৌঁছালে তাকে একনজর দেখতে সেখানে লোকে লোকারণ্য হয়ে যায়। লোকজনকে কোনরকমে সান্তনা দিয়ে নাহিদ তার বাড়ি ‘হান্নান-মোমেনা ম্যানশন’ এ ফেরার পর আরেক হৃদয়বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয়। মৃত্যুর দুয়ার থেকে ফিরে আসা নাহিদ’কে জড়িয়ে তার আত্মীয় স্বজন, পাড়াপ্রতিবেশি, সহপাঠী, বন্ধু বান্ধব সহ অন্যান্য সকলে তাকে ধরে অঝোরে কান্না করতে থাকে। এসময় সবার মুখে মুখে ছিলো-নাহিদ পূণ: জন্ম লাভ করেছে। এরকম ভয়াবহ বিমান দুর্ঘটনা থেকে জীবন নিয়ে ফিরে আসা খুবই দুরূহ বিষয়।

স্বপ্নবাজ নাহিদ এরশাদ নয়ন ২০১৭ সালে কৃতিত্বের সাথে এইসএসসি উত্তীর্ণ হওয়ার পর বিমানের পাইলট হয়ে আকাশে উড়ার রঙ্গিন স্বপ্ন নিয়ে বাংলাদেশ ফ্লাইং একাডেমিতে যোগ দেয় একইবছর। এবছরের শেষ দিকে, পরিপূর্ণ একজন পাইলট হয়ে বাংলাদেশ ফ্লাইং একাডেমী থেকে সনদ নিয়ে বের হওয়ার কথা ছিলো তার। কিন্তু ১৬ মার্চের ভয়াবহ বিমান দুর্ঘটনা নাহিদ এরশাদ নয়নের রঙ্গিন স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করতে সে চুড়ান্ত সময়কে আরো বাড়িয়ে দিয়েছে।

অদম্য সাহসী ও আত্মবিশ্বাসী নাহিদ এরশাদ নয়ন ১৬ মার্চের ভয়াবহ দুর্ঘটনা সম্পর্কে বলেন, প্রশিক্ষণ বিমানে যখন ইঞ্জিনে ত্রুটি দিয়েছিলো- তখন মহান আল্লাহর কাছে দয়া ও রহমত চোয়েছিলাম কায়মনোবাক্যে। প্রশিক্ষক ও আমার তড়িৎ সিদ্ধান্ত ছিলো বিমানটি জরুরী অবতরণের। তারপরও মনে হয়েছে, যেন আমরা আর বেঁচে নেই। কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে জীবন প্রদীপ নিভে যাচ্ছে। এরপর বিমানটি আলুক্ষেতে জরুরী অবতরণের পর আমরা দু’জন যখন উল্টে যাওয়া বিমান থেকে সামান্য আহত অবস্থায় বের হই-তখন মনে হয়েছে-আমরা কি এখনো বেঁচে আছি। যেটা বিশ্বাস করতে আমার খুব কষ্ট হচ্ছিল। আল্লাহতায়লা তাঁর অসীম কৃপায় আমাদের পূণ: জীবন দান করেছেন। মহান আল্লাহতায়লা চাইলে কি-না পারেন। তিনি সবই পারেন।”

অপ্রতিরোধ্য নাহিদের চাচা রশিদনগরের রাজনীতিবিদ, তরুণ ব্যবসায়ী মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন জানান, নাহিদ দৃঢ় মনোবলসম্পন্ন, আত্মপ্রত্যয়ী, বড় হয়ে দেশের কল্যানে নিজেকে উৎসর্গ করার মতো মানসিকতা তার খুব বেশী। নাহিদের প্রতিটি কাজে চমৎকার দেশপ্রেমবোধ কাজ করে। অসাধারণ, নতুন ও ব্যতিক্রমী কিছু করতে চাওয়া নাহিদ এর সহজাত অভ্যাস।

ভয়াবহ বিমান দুর্ঘটনা জীবনে বেঁচে যাওয়া মেধাবী নাহিদ এর পিতা রশিদনগর ইউনিয়ন পরিষদের সম্ভাব্য চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী মোহাম্মদ হান্নান ছিদ্দিকী ও তাঁর সহধর্মিণী মোমেনা আক্তার তাঁদের সন্তানকে অক্ষত অবস্থায় কাছে পেয়ে বেশ খুশি। তাঁরা মহান আল্লাহরাব্বুল আলামীনের কাছে শোকরিয়া জ্ঞাপন করে তাদের সন্তান, বৃহত্তর জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়নের সাবেক মেম্বার মরহুম এরশাদুল হক ও মরহুমা শামশুন্নাহারের নাতী শিক্ষানবিশ পাইলট নাহিদ এরশাদ নয়ন এর সফলতার জন্য সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •