আনোয়ার হোছাইন, ঈদগাঁও:
কক্সবাজার সদরের ঈদগাঁও থানার নাকের ডগায় সুদের টাকার জন্য সুদি মহাজন ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা দিবালোকে গর্ভবতী মহিলা ও তার ছেলেকে বেঁধে অমানবিক নির্যাতনের গুরুতর অভিযোগ উঠেছে। শনিবার সকাল পৌনে ৯ টার দিকে থানার নিকটস্থ ইসলামাবাদ ইউনিয়নের ফকিরা বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।
সরেজমিনে জানা যায়, উক্ত এলাকার জাফর আলমের কন্যা রুমা,স্বামী- আবদুল খালেক প্রতিবেশী আবু তাহেরের স্ত্রী মনোয়ারা বেগমকে চড়া সুদে টাকা ধার দেয়।ইতিমধ্যে সে সুদের অনেক টাকা পরিশোধ করে। সম্প্রতি মনোয়ারা সুদের টাকা দিতে না পারাতে শনিবার সকালে রুমা,তার মা তফুরা এবং বোন জোছনা গর্ভবতী মনোয়ারাকে সুদের টাকার জন্য মারধর শুরু করে।সন্তান সম্ভবা মনোয়ারা নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে।এতে তার সন্তান সাইফুল মা’কে রক্ষায় এগিয়ে আসলে তাকে এবং তার বাবা আবু তাহেরকেও মারধর করে চরম নির্যাতন শুরু করে।এক পর্যায়ে সাইফুলকে গাছে বেঁধে নির্যাতন শুরু করে।
তাদের রক্ষায় স্থানীয়রা এগিয়ে এসে মনোয়ারাকে মুমূর্ষ অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে ঈদগাঁও থানার ডিউটি অফিসারকে দেখায়।দায়িত্বরত পুলিশ কর্মকর্তা প্রথমে আহত মনোয়ারাকে হাসপাতালে ভর্তির পরামর্শ দিলে তাকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।অপরদিকে সরেজমিনে দেখা যায়,দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত সাইফুলকে বেঁধে রাখা গাছের সাথে দেখা যায়।সে উপস্থিত সাংবাদিকদের তার সন্তান সম্ভবা মাকে অকথ্য নির্যাতন, তার বাবাকে মারধর এবং তাকে গাছে বেঁধে নির্যাতন ও মারধরের অভিযোগ করেন।ঐসময় অভিযোগ উঠা সুদি কারবারি রুমা,তার মা তফুরা এবং জোছনা তাদের পাওনা টাকা আদায়ে তাদের মারধর,বেঁধে রাখা ও নির্যাতনের কথা স্বীকার করেন।তবে কিছুক্ষণ আগে সাইফুলকে বাঁধা থেকে খুলে দিয়েছেন বলেও জানান। এদিকে থানার নাকের ডগায় এরকম একটি বর্বর ঘটনা সংঘটিত হলেও প্রশাসন রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত কোন ব্যাবস্থা গ্রহণ না করায় জনমনে ক্ষোভ বিরাজ করছে। এদিকে রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত চিকিৎসা নিয়ে ব্যাস্ত থাকায় নির্যাতনের শিকার পক্ষ এখনো থানায় লিখিত অভিযোগ করেনি বলে জানান।এদিকে এলাকাবাসীর অভিযোগ নির্যাতনকারী উক্ত রুমা তার স্বামী প্রবাসে থাকার সুযোগে পিতার অবাধ্য এলাকা ও বাহিরের অসংখ্য পর পুরুষের সাথে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে তুলার অভিযোগে উক্ত স্বামী তাকে তালাক দেয়।এতে সে আরো বেপরোয়া হয়ে উঠে এবং মায়ের সহযোগিতায় পুরো এলাকায় অনৈতিক সম্পর্কের বিস্তার ঘটায় বলেও স্থানীয়দের অভিযোগ।তারা এলাকার পরিবেশ রক্ষায় প্রশাসনসহ সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •