সংবাদ বিজ্ঞপ্তিঃ
বিস্তৃত অববাহিকা ও জীবন্ত বদ্বীপের দেশ বাংলাদেশ। নদী-এর ইতিহাস, নদী-এর ঐতিহ্য, নদী-এর সাংস্কৃতিক অলংকার। বাংলাদেশের ভিতর দিয়ে প্রবাহিত নদীসমূহ এদেশের ঐতিহ্য ও অহংকারের সচল ধারা। এদেশের নদীসমূহ লোকগাথা, শিল্প, সাহিত্য, সংস্কৃতির আঞ্চলিকতা ছাপিয়ে আন্তর্জাতিকভাবে বিকশিত করেছে ঐতিহ্যকে। নদীর অবস্থান, আচরণ, বিস্তৃতি, প্রথাগত ঐতিহ্য তাই এদেশকে শুধু নদীমাতৃক দেশে রূপান্তরিত করেনি, দিয়েছে অর্থনৈতিক,সাংস্কৃতিক ও সামাজিকভাবে সমৃদ্ধি। হাজার বছরের বাঙালিয়ানার শিকড় এভাবেই প্রোথিত হয়েছে গভীরে। সীমাহীন অতলে।
মুক্ত জলাশয় ও নদীকে সুরক্ষার প্রতিশ্রুতির লক্ষ্যে শুক্রবার (১৯ মার্চ) বাংলাদেশ নদী পরিব্রাজক দলের দিনব্যাপী কেন্দ্রীয় কর্শাশালা কক্সবাজারে হোটেল মিশুকের বল রুমে অনুষ্ঠিত হয়।
প্রধান অতিথি ছিলেন, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ও হালদা রিভার রিসার্চ ল্যাবের সমন্বয়কারী ড. মো. মনজুরুল কিবরিয়া। প্রধান প্রশিক্ষক ছিলেন, বাংলাদেশ রিভার ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মুহাম্মদ মনির হোসেন।
আলোচক ছিলেন- কেন্দ্রীয় কমিটির সিনিয়র সহসভাপতি সারওয়ার সাঈদ ও গ্রিন প্ল্যানেটের চেয়ারম্যান ও নদী পরিব্রাজক দলের চট্টগ্রাম জেলা সভাপতি স্হপতি মো. মিজানুর রহমান।
কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী মো.হাবিবুর রহমানের পরিচালনায় সভাপতি ছিলেন, সহসভাপতি ড. মো.ইসলাইল হোসেন।
শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় কমিটির নির্বাহী সম্পাদক ইসলাম মাহমুদ।
অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ডীন ড. খাঁন সরফরাজ আলী।
কর্মশালায় সারা দেশ থেকে বিভিন্ন পেশার কেন্দ্রীয় কমিটির পঞ্চাশ জন ডেলিগেট অংশনেন। উল্লেখ্য, নদী ও পরিবেশবাদী সংগঠন নদী পরিব্রাজক দল, যারা নদী ভ্রমণ করে,সরেজমিন নদী পরিদর্শন করে, নদীর অর্থনৈতিক ও পর্যটন গুরুত্ব বিশ্লেষণ করে,নদী বিষয়ে নদী পাড়ের মানুষের সাথে তথ্যের আদান প্রদান করে, নদী পাড়ের মানুষ ও তরুণ প্রজন্মকে সচেতন করার চেষ্টা করে। সংগঠনটি বিশ্বাস করে নদী পাড়ের মানুষ ও তরুণ সমাজ নদী বিষয়ে সচেতন হলে নদী সুরক্ষার কাজটি অনেক দূর এগিয়ে যাবে।
উল্লেখ্য, নদী পরিব্রাজক দল নদী ও জলাশয় রক্ষা, প্রতিবেশ রক্ষা, উন্নয়ণ,সংরক্ষণ ও নদীর তীরবর্তী জনগোষ্ঠীর কল্যাণে গঠিত একটি স্বেচ্ছাসেবী নেটওয়ার্ক। নদী বাংলাদেশের জীবন রেখা। নদী বাঁচলেই বাংলাদেশ বাঁচবে। নদী বাঁচলেই প্রাণের অস্তিত্ব টিকে থাকবে। সভ্যতা ও সংস্কৃতি টিকে থাকবে। তাই তরুণ সমাজসহ সকলকে নদী বিষয়ে আগ্রহী ও উদ্যোগী করতে সংগঠনটি নদী রক্ষায় নদী ভ্রমণ, নদী পরিদর্শনসহ বিভিন্ন সচেতনতামূলক কার্যক্রম গ্রহণ করে ও নদীর পাড়ের মানুষের কল্যাণে বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহন করে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •