বলরাম দাশ অনুপম:
মহেশখালীর মৈনাক পাহাড়ের চূড়ায় ঐতিহাসিক শিব চতুদর্শী পূজা ও আদিনাথ মেলাকে কেন্দ্র করে বসেছে লাখো ভক্ত দশণার্থীদের মিলনমেলা। এ যেন সম্প্রীতির এক অনন্য সেতুবন্ধন। মহেশখালীতে বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হয়েছে ঐতিহাসিক শিব চতুর্দশী পূজা ও আদিনাথ মেলা। ১১ মার্চ থেকে শুরু হওয়া এই মেলা চলবে ১৭ মার্চ পর্যন্ত। তবে শিব দর্শন চলবে আজ শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৩টা পর্যন্ত।

বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৩টা থেকে হিন্দু সম্প্রদায়ের সকল বয়সের নর-নারীরা ডাব, দুধ দিয়ে একে একে দেবাদিদেব মহাদেব শিবকে স্নান করানোর মধ্যে দিয়ে নিজেদের পূণ্য অর্জনের কামনা করেন। শুধু হিন্দু সম্প্রদায় নয়, দেবাদিদেব মহাদেব শিবকে দর্শন ও স্নান করানোর জন্য বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের নর-নারীদেরও ঢল নামে আদিনাথ মন্দিরে। তবে যারা নানা কাজের ব্যস্ততার কারণে মহেশখালীর আদিনাথে গিয়ে শিব লিঙ্গকে দর্শন করতে পারেননি তারা কক্সবাজার শহরের ঘোনারপাড়াস্থ শ্রীশ্রী কৃষ্ণানন্দধাম, স্বরসতী বাড়িতে দুধ ও ডাব দিয়ে শিব দর্শন করেছেন।

এদিকে ঐতিহ্যবাহী ধর্মীয় উৎসব, আদিনাথ মন্দিরে শিব চতুর্দশী মেলা ২০২১ উদযাপন উপলক্ষে মহেশখালীতে আইন শৃংখলা সংক্রান্ত সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে। মহেশখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও মেলা উদযাপন পরিষদের সভাপতি মোঃ মাহফুজুর রহমানের সভাপতিত্বে ৯ মার্চ উপজেলা প্রশাসনের হলরুমে আইন শৃঙ্খলা সভা অনুষ্ঠিত হয়। শিব চতুর্দশী মেলা উপলক্ষে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল হতে হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন তীর্থযাত্রী হিসেবে এ মেলায় আগমন করে থাকেন। আগত তীর্থযাত্রীগণ যাতে নির্বিঘেœ ও শান্তিপূর্ণভাবে শ্রীশ্রী আদিনাথ মন্দিরে শিব দর্শনে অংশগ্রহণ করতে পারেন সে জন্য সকল ধরনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে আয়োজক কমিটির পক্ষ থেকে।

আদিনাথ মন্দির সংস্কার কমিটির সাধারণ সম্পাদক শান্তিলাল নন্দী জানান, আদিনাথ দর্শনে আসা হাজার হাজার নর-নারীদের নিরাপত্তা ও মেলাকে সুষ্ঠু এবং সুন্দরভাবে সম্পন্নের লক্ষে সার্বক্ষণিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। তিনি জানান, এবার এক সপ্তাহব্যাপি মেলা অনুষ্ঠিত হবে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে লিখিত ভাবে ৫ দিন মেলার অনুমতি দেয়া হলেও মোখিক ভাবে ৭ দিনের অনুমতি নেয়া হয়েছে বলে জানান তিনি। মহেশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও মেলা কমিটির সভাপতি মো. মাহফুজুর রহমান বলেন, মেলাকে ঘিরে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •