প্রেস বিজ্ঞপ্তি:
মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় এগিয়ে যাওয়ার প্রত্যয়ে আত্মপ্রকাশ হয়েছে ‘মুক্তিযুদ্ধের ঐক্য’ কক্সবাজার জেলা শাখা।

বুধবার বিকালে কক্সবাজার সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে আত্মপ্রকাশ অনুষ্ঠান ও সংবাদ সম্মেলনের মধ্য দিয়ে নতুন এ সংগঠনের যাত্রা শুরু হয়েছে।

জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে উদ্বোধন হওয়া অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র আল-কোরআন, ক্রিপিঠক ও গীতা থেকে বানী পাঠ করা হয়।

অনুষ্ঠানের প্রথম পর্বে অনুষ্ঠিত হয় সংবাদ সম্মেলন। এতে কক্সবাজারে নতুন আত্মপ্রকাশ করা ‘মুক্তিযুদ্ধের ঐক্য’ সংগঠনের লক্ষ্য ও উদ্দ্যেশ সম্পর্কে ঘোষণাপত্র পাঠ করেন কমিটির আহবায়ক ও কক্সবাজার পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. নজিবুল ইসলাম।

এতে দিক-নির্দেশনামূলক আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন দৈনিক কালের কণ্ঠের বিশেষ প্রতিবেদক সাংবাদিক নেতা তোফায়েল আহমদ, কক্সবাজার প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মো. মুজিবুল ইসলাম, দৈনিক প্রথম আলোর কক্সবাজার অফিস প্রধান আব্দুল কুদ্দুস রানা ও কক্সবাজার প্রেস ক্লাবের ক্রীড়া সম্পাদক দিপক শর্মা দীপু।

দ্বিতীয় পর্বে ‘মুক্তিযুদ্ধের ঐক্য’ কক্সবাজার জেলা শাখার আহবায়ক মো. নজিবুল ইসলামের সভাপতিত্বে এবং সদস্য সচিব ও কক্সবাজার সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল করিম মাদু’র সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত হয়েছে আলোচনা সভা।

এতে বক্তব্য রাখেন, মুক্তিযুদ্ধের ঐক্য জেলা শাখার যুগ্ম আহবায়ক ও রামু উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সামশুল আলম মন্ডল, যুগ্ম আহবায়ক ও কক্সবাজার পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক উজ্জল কর, যুগ্ম আহবায়ক ও জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক প্যানেল মেয়র মাহবুবুর রহমান মাবু, জেলা আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার সম্পাদক এম এ মঞ্জুর, জেলা আওয়ামী লীগের ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক হেলাল উদ্দিন কবির, জেলা আওয়ামী লীগের শ্রম বিষয়ক সম্পাদক কাজী মোস্তাক আহমেদ শামীম, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি আব্দুল হক জিকু, কক্সবাজার পৌর আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক সম্পাদক রিদুয়ান আলী ও রামু উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নুরুল হক প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র মুজিবুর রহমান প্রধান অতিথি হিসেবে আমন্ত্রিত হলেও সাংগঠনিক কাজে ঢাকায় অবস্থান করায় উপস্থিত থাকতে পারেননি। তবে তিনি মুঠোফোনে সংযুক্ত হয়ে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন।

তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্য বলেন, মুক্তিযুদ্ধে ঐক্য দীর্ঘদিনের পরীক্ষিত রাজনৈতিক কর্মী, পেশাজীবী, সাংস্কৃতিক সংগঠনের ঐক্যের বন্ধন। এটা মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে আরো বেশি শানিত করবে।

সভাপতির বক্তব্যে মুক্তিযুদ্ধের ঐক্য জেলা শাখার আহবায়ক মো. নজিবুল ইসলাম বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য নেতৃত্ব এবং ৩০ লক্ষ শহীদের রক্তে রঞ্জিত না হলে বাংলাদেশ স্বাধীন হত না। যতদিন পর্যন্ত বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের শহীদদের রক্তঋণ শোধ হবে না ততদিন পর্যন্ত মুক্তিযুদ্ধের ঐক্য তাঁদের চেতনাকে বুকে ধারণ করে লড়াই-সংগ্রাম অব্যাহত রাখবে।

মুক্তিযুদ্ধের ঐক্যের নেতা-কর্মিদের প্রতি যে কোন পরিস্থিতিতে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহবান জানিয়ে নজিবুল বলেন, মুক্তিযুদ্ধের ঐক্যের নেতা-কর্মিরা যদি ঐক্যবদ্ধ থাকে কক্সবাজারে এমন কোন শক্তি নাই যারা বঙ্গবন্ধুর চেতনাকে বিনষ্ট করতে পারে, মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে বিনষ্ট করতে পারে। তাই নিজেদের মধ্যে যাতে কোন অপশক্তি ঘাপটি মেরে থাকতে না পারে এ ব্যাপারে সকলকে সজাগ থাকতে হবে।

বক্তব্যের শেষ পর্যায়ে বঙ্গবন্ধুর অসম্পূর্ণ স্বপ্ন ও মুক্তিযোদ্ধাদের অসম্পূর্ণ স্বপ্ন বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ‘বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ’ উপলক্ষ্যে সংগঠনটির আহবায়ক নজিবুল ইসলাম বছরব্যাপী নানা কর্মসূচী ঘোষণা করেন।

এর মধ্যে রয়েছে, আগামী ১৯ মার্চ রামু শহীদ মিনারে, ২২ মার্চ ঈদগাঁও শহীদ মিনারে এবং ৩০ মার্চ কক্সবাজার কেন্দ্রিয় শহীদ মিনারে সমাবেশ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে। এতে জাতীয় পর্যায়ের রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক, সামাজিক, বুদ্ধিজীবী, শিল্পী-সাহিত্যিকরা সহ স্থানীয় পর্যায়ের নেতাকর্মিরাও উপস্থিত থাকবেন।

এছাড়া স্কুল ও কলেজ পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের নিয়ে বছরব্যাপী নানা প্রতিযোগিতার আয়োজন, সংগঠনের নিজস্ব কার্যালয়ে পাঠাগার স্থাপন ও বঙ্গবন্ধু কর্ণার গড়ে তোলাসহ নানা কর্মসূচী গ্রহণের পাশাপাশি সংগঠনকে উপজেলা পর্যায়ে বিস্তৃত করে তৃণমূল পর্যন্ত ইউনিট গঠন করে ‘মুক্তিযুদ্ধের অবিনাশী চেতনাকে’ প্রজন্মান্তরে ছুিড়য়ে দেয়ার উদ্যোগ নেয়া হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •