সিবিএন ডেস্ক:
নির্যাতনের অভিযোগে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিরুদ্ধে মামলার আবেদন করেছেন কার্টুনিস্ট আহমেদ কবীর কিশোর। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় গ্রেফতারের পর হেফাজতে নিয়ে নির্যাতন চালানো হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন তিনি। আবেদনে অজ্ঞাতনামাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের আর্জি জানানো হয়েছে।

বুধবার (১০ মার্চ) দুপুরে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক কে এম ইমরুল কায়েশের আদালতে এ আবেদন করেন কিশোর। তার জবানবন্দি গ্রহণ করে নথি পর্যালোচনা শেষে আদেশ পরে দেবেন বলে জানান আদালত।

সংশ্লিষ্ট আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর তাপস কুমার পাল এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

কিশোরের ভাই লেখক ও অভিনেতা আহসান কবির ফেসবুকে এক স্ট্যাটাসে জানান, ফৌজদারি কার্যবিধির নির্যাতন এবং হেফাজতে মৃত্যু (নিবারণ) আইন, ২০১৩ (২০১৩ সনের ৫০ নং আইন) এর ৪/৫/৬/৭ ধারা মোতাবেক অজ্ঞাত আসামিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে যথাযথ কর্তৃপক্ষকে আদেশ দিতে আবেদন করেছেন কিশোর। আদালত আবেদন গ্রহণ করে আদেশের জন্য দুই দিন সময় নিয়েছেন।

উল্লেখ্য, কার্টুনিস্ট আহমেদ কবির কিশোরকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় ২০২০ সালের ৫ মে থেকে গ্রেফতার করা হয়। এরপর চলতি বছরের ৫ মার্চ দীর্ঘ ১১ মাস কারাভোগের পর ছয় মাসের জামিনে কারাগার থেকে বের হন তিনি।

তার ভাই আহসান কবির বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, কিশোরের পায়ে বেশ কিছু আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তবে কোনও হাড়ে ফাটল ধরেনি। পায়ের স্নায়ুতে আঘাত লাগার ফলে হাঁটতে প্রচণ্ড ব্যথা অনুভব করেন তিনি। এছাড়া তার কানের পর্দায় খুব জোরালো আঘাত রয়েছে। আঘাতের কারণে কানের পর্দার পাশে রক্ত জমে সেখানে ক্ষত সৃষ্টি হয়েছে। যত দ্রুত সম্ভব সেখানে যন্ত্র প্রতিস্থাপন করতে চান চিকিৎসকরা। এছাড়া দীর্ঘদিন ডায়বেটিসের মাত্রা অনিয়ন্ত্রিত থাকার ফলে গ্লুকোমাজনিত ছানি সৃষ্টি হয়েছে কিশোরের চোখে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •