কামাল শিশির,রামু :

আসন্ন কক্সবাজারের রামু উপজেলার ঈদগড় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে নৌকার মাঝি হতে চান রামু উপজেলা যুবলীগ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ,ঈদগড় ইউনিয়নে ২ বার ভোটে নির্বাচিত বর্তমান সফল চেয়ারম্যান বীর মুক্তি যোদ্ধা ডাক্তার সিরাজুল হক রেজার ভাতিজা ফিরোজ আহমদ ভূট্টো।

তিনি এলাকায় সকল বয়সী ও শ্রেণি পেশার মানুষের পরিচিত এবং আপনজন। মানুষের বিপদে ঘরে বসে থাকতে পারেন না, ছুটে যান বিপদগ্রস্থ মানুষের পাশে। বিয়ে-সাদী, অভাবী, কাজহীন মানুষকে সহযোগিতা করা, যুব সমাজকে আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত, মাদকমুক্ত ও ক্রীড়ামোদী করে গড়ে তোলার চেষ্টার পাশাপাশি এলাকার সার্বিক উন্নয়নে অংশগ্রহণে সব সময় নিজেকে জড়িয়ে রাখেন তিনি।

করোনাকালীন সময়েও সরকারি ত্রাণের পাশাপাশি ব্যক্তিগত তহবিল থেকে কর্মহীন খেটে খাওয়া অসহায় পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী,নগদ অর্থ ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার মাক্স সহ বিভিন্ন সামগ্রী বিতরণ করেন। জনগণের ইচ্ছা ও ভালবাসার প্রতিদান দিতে নৌকার মাঝি হয়ে নির্বাচন করতে চান তিনি।

এলাকার বিভিন্ন বয়সের মানুষের সাথে কথা বলে জানা যায়, দক্ষ সংগঠক ও বলিষ্ঠ নেতৃত্বের কারনে তারা আবারো চেয়ারম্যান ফিরোজ আহমদ ভূট্টো কে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করতে চান। ঈদগড় ইউনিয়নের উন্নয়নের জন্য তার বিকল্প নাই। ইতিমধ্যে ইউনিয়নের যুবসমাজ, ছাত্রসমাজসহ কৃষক-শ্রমিক, বয়োবৃদ্ধ ও সাধারণ জনগণের বেশিরভাগ অংশই বর্তমান চেয়ারম্যান ফিরোজ আহমদ ভূট্টোর পক্ষে ঐক্যবদ্ধ হয়ে মাঠে নেমেছেন ।

চেয়ারম্যান ফিরোজ আহমদ ভূট্টো জানান ,মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও রামু কক্সবাজার সদর ০৩ আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল এমপির হাতকে শক্তিশালী করার লক্ষ্যে এবং স্থানীয় নেতৃবৃন্দ ও জনগণের চাহিদা অনুয়ায়ী আসন্ন ইউপি নির্বাচনে আমি অংশ নিতে চাই। জনগণের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত করতে চাই। আমার দল আমাকে মনোনয়ন দিয়ে নৌকা প্রতীক দিলে এবারও আমি বিপুল ভোটে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হবো-এটা আমার দৃঢ় বিশ্বাস রয়েছে।

নির্বাচিত হলে ঈদগড় ইউনিয়নকে আধুনিক মডেল হিসেবে গড়ে তোলার ইচ্ছা রয়েছে এবং গত ১০ বছরে এলাকার যে উন্নয়ন করেছি তা বিগত ৪০ বছরেও কেউ করতে পারেনি। তাছাড়া ভবিষৎেও পারবেনা। পাশাপাশি অপহরণ, মাদক ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যুব সমাজকে সঙ্গে নিয়ে আন্দোলন গড়ে তুলব এবং অতিতে করেছি যা এখনো চলমান আছে থাকবে ।

সেই সাথে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে সহযোগী হতে চাই। কারণ গত ১০ বছর ঈদগড় ইউনিয়নে আমি চেয়ারম্যান থাকায়-জনগণ উন্নয়নের ছোয়া পেয়েছে । ঈদগড় ইউনিয়নের উন্নয়নের ধারা গতিশীল করতে হলে আমার বিকল্প নেই।সে কারণে আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবীত হয়ে নৌকার মাঝি হয়ে আবারো ঈদগড় ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে মানুষের সেবা করতে চাই।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •