সিবিএন ডেস্ক:
আফগানিস্তানের জালালাবাদ শহরে একটি বেসরকারি টেলিভিশনের তিন কর্মীকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। দুটি পৃথক হামলায় তাঁদের হত্যা করা হয়। এ ছাড়া গুলিবিদ্ধ একজন গুরুতর আহত অবস্থায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন। বিবিসির খবরে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

পুলিশ বন্দুকধারী একজনকে আটক করেছে, অন্যদেরও খুঁজছে। পুলিশ তালেবানকে এ ঘটনায় দায়ী করছে। তবে, তালেবানের পক্ষ থেকে জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করা হয়েছে।

নিহত তিনজনেরই বয়স ১৮ থেকে ২০ বছর। সবে উচ্চ মাধ্যমিকের পড়াশোনা শেষ করেছিলেন। এনিকাস টিভির ডাবিং বিভাগে কাজ করতেন তাঁরা। টেলিভিশন স্টেশনটির প্রধান জালমাই লতিফি এসব তথ্য জানিয়েছেন।

টিভিতে কাজ শেষে বাড়ি ফেরার পথে একইভাবে দুই জায়গায় হামলা চালিয়ে গুলি করে তাঁদের হত্যা করা হয়। ইদানীং সাংবাদিক, মানবাধিকারকর্মী ও রাজনীতিবিদদের টার্গেট করে হত্যার ঘটনায় আফগানিস্তানে নতুন করে আতঙ্ক ছড়িয়েছে।

সংবাদ সংস্থা অ্যাসোসিয়েটেড প্রেস জানায়, একা বাড়ি ফেরার পথে মুরসাল ওয়াহিদিকে এবং শাহনাজ ও সাদিয়াকে পৃথক ঘটনায় গুলি করা হয়।

নানগারহার পুলিশ প্রধান জুমা গুল হেমাত বলেন, ‘পালানোর সময় একজনকে ধরেছি আমরা। সে নিজেকে তালেবান সদস্য হিসেবে স্বীকার করেছে।’

এনিকাস টিভি জানিয়েছে, তাদের স্টেশনে ১০ জন নারীকর্মীর মধ্যে চারজনকেই হত্যা করা হলো। এর আগে গত ডিসেম্বরে মালালাই মাইওয়ান্দ আইএসের হামলায় নিহত হন।

এ ছাড়া গত মাসে রাজধানী কাবুলে সুপ্রিম কোর্টের দুই নারী বিচারককে গুলি করে হত্যা করা হয়।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •