সিবিএন ডেস্ক:
দারুল ইহসান বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৯টি ক্যাম্পাসের সব শিক্ষার্থীর সনদের বৈধতা নিয়ে সম্প্রতি একটি ভুয়া চিঠি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়। ভাইরাল হওয়া চিঠির সূত্র ধরে একটি শিক্ষা বিষয়ক অনলাইন পোর্টাল সংবাদ প্রকাশ করে। এর প্রতিবাদ জানিয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ বলছে, পত্রটি ভুয়া। প্রকাশিত সংবাদটি মিথ্যা ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।

সোমবার (১ মার্চ) স্বাক্ষরিত একটি প্রতিবাদ লিপি মঙ্গলবার (২ মার্চ) মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ নিজস্ব ওয়েবসাইটে প্রকাশ করে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, দারুল ইহসানের সনদধারীদের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে বছরের পর বছর দেরি করায় প্রায় ২ হাজার বেসরকারি শিক্ষককে মানবেতর জীবন যাপন করতে হচ্ছে। শুধু তাই নয়, মূল সনদ না পাওয়ায় হাজার হাজার বৈধ সনদধারীর ভবিষ্যৎ এখন অন্ধকারে। এই পরিস্থিতিতে মধ্যেই নানা বিভ্রান্তি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। এরই ধারাবাহিকতায় সম্প্রতি মন্ত্রণালয়ের জারি করা দেখানো একটি ভুয়া চিঠি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়।

মন্ত্রণালয়ের প্রতিবাদ লিপিতে জানানো হয়, গত ১৯ ফেব্রুয়ারি দৈনিক শিক্ষা নামের একটি পত্রিকায় মিথ্যা সংবাদ প্রকাশিত হয়। সংবাদে বলা হয়, সনদ বিক্রিসহ বিভিন্ন দুর্নীতির অভিযোগে আদালতের আদেশে বন্ধ করে দেওয়া দারুল ইহসান বিশ্ববিদ্যালয়টির ২৯টি ক্যাম্পাসের সব শিক্ষার্থীর সনদের বৈধতা দেওয়ার বিষয়ে সম্মতি দিয়েছে মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ। একইসঙ্গে শিক্ষার্থীদের মূল সনদ ইস্যু করতে পরিচালনা পর্ষদের সদস্যদের তালিকা প্রস্তাব করতে বলা হয়।

মন্ত্রণালয়ের প্রতিবাদ লিপিতে বলা হয়, উপ-সচিব শামিমা বেগম নামে ভুয়া স্বাক্ষরে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়-১ শাখার ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১ তারিখের ৩৭.০০.০০০০.০৭৮.৩১.০০১.১৯.৩৪ নম্বর ভুয়া স্মারক দেখিয়ে একটি জাল পত্র জারি দেখানো হয়েছে। প্রকৃতপক্ষে দারুল ইহসান বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুকূলে ২৯টি ক্যাম্পাসের সব শিক্ষার্থীর সনদের বৈধতা দেওয়া এবং শিক্ষার্থীদের মূল সনদ ইস্যু কার্যক্রম কিংবা সিদ্ধান্ত মন্ত্রণালয়ে গৃহীত হয়নি এবং এ বিষয়ে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়-১ শাখা থেকে কোনও পত্র জারি করা হয়নি।’

প্রচারিত সংবাদটি সম্পূর্ণ মিথ্যা ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। এ ধরনের মিথ্য ও প্রতারণামূলক সংবাদের বিষয়ে সংশ্লিষ্ট সবাইকে সতর্ক থাকার নির্দেশ দিয়েছে মন্ত্রণালয়।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •