আ.লীগের সাংসদের কেন্দ্রে নৌকা ১৬, ধানের শীষ ৯৮১

প্রকাশ: ২ মার্চ, ২০২১ ০৮:৪৯

পড়া যাবে: [rt_reading_time] মিনিটে


কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলা পরিষদে চেয়ারম্যান পদে জয়ী আওয়ামী লীগের প্রার্থী আবুল কালাম আজাদ। ছবি : সংগৃহীত
cbn  

সিবিএন ডেস্ক:
কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলা পরিষদের উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগের সাংসদ রাজী মোহাম্মদ ফখরুলের নিজ কেন্দ্রে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী পেয়েছেন ১৬ ভোট। আর ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী পেয়েছেন ৯৮১ ভোট। গতকাল রোববার অনুষ্ঠিত উপনির্বাচনের এমন ভোট পড়ে।

সাংসদ রাজী মোহাম্মদ ফখরুল দেবিদ্বার উপজেলার গুনাইঘর উত্তর ইউনিয়নের ৭৯ নম্বর কেন্দ্র বনকোট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভোটার। ওই কেন্দ্রে মোট ভোটার ছিলেন এক হাজার ৩১৯ জন। এর মধ্যে গতকাল ভোট দিয়েছেন এক হাজার সাতজন। ওই কেন্দ্রে উপজেলা চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আবুল কালাম আজাদ নৌকা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন মাত্র ১৬ ভোট। আর তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির প্রার্থী এ এফ এম তারেক ধানের শীষ নিয়ে পেয়েছেন ৯৮১ ভোট। প্রার্থী আবদুল হক খোকন আনারস প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন দুই ভোট। আবদুল আউয়াল সরকার লাঙল প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন দুই ভোট। আর বাতিল হয়েছে ছয়টি ভোট।

দেবিদ্বার উপজেলা পরিষদে গতকাল মোট ১১৪টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ করা হয়। এর মধ্যে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আবুল কালাম আজাদ সর্বনিম্ন ভোট পেয়েছেন বনকোট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে। অথচ কুমিল্লা-৪ আসনে আওয়ামী লীগের সাংসদ রাজী মোহাম্মদ ফখরুলের বাড়ি গুনাইঘর উত্তর ইউনিয়নের বনকোট গ্রামে।

নির্বাচনি ফলাফলে দেখা যায়, এলাকায় মোট ভোটার তিন লাখ ৩৭ হাজার ৫০২ জন। এর মধ্যে ভোট পড়েছে এক লাখ ৫৮ হাজার ১৬৯টি। ৯৫ হাজার ৫৬৪ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন নৌকার প্রার্থী আবুল কালাম আজাদ। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী এ এফ এম তারেক ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৫৯ হাজার ১৪২ ভোট।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে রাজী মোহাম্মদ ফখরুল নৌকা নিয়ে বিজয়ী হয়েছেন। এর আগে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য হয়েছিলেন।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, কুমিল্লা-৪ (দেবীদ্বার) আসনে আওয়ামী লীগের সাংসদ রাজী মোহাম্মদ ফখরুলের চাচা ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য এ এফ এম ফখরুল ইসলাম মুন্সীর ছোট ভাই এ এফ এম তারেক এবার ধানের শীষ নিয়ে ভোট করেন।

একটি কেন্দ্রে সর্বনিম্ন ভোট পাওয়া প্রসঙ্গে নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়্যারম্যান আবুল কালাম আজাদ এনটিভি অনলাইনকে বলেন, ‘রাজী মোহাম্মদ ফখরুল সাহেব নৌকার সংসদ সদস্য, তাঁর নিজ কেন্দ্রসহ পুরো উপজেলায় একটি ভোট ব্যাংক আছে। পুরো এলাকার জনগণ আমাকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছে। অথচ তাঁর এলাকা বা কেন্দ্রে আমি পেলাম মাত্র ১৬ ভোট। বিষয়টি খুবই দুঃখজনক।’

সাংসদ আপনার বিরোধিতা করেছেন কি না এমন প্রশ্নের জবাবে আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘আমি নই, সেটা ভোটেই কথা বলছে যে তিনি নৌকার পক্ষে ছিলেন না।’

এ বিষয়ে হোয়াটসঅ্যাপে যোগাযোগ করা হলে সাংসদ রাজী মোহাম্মদ ফখরুল এনটিভি অনলাইনে বলেন, ‘সংসদীয় আইন অনুযায়ী স্থানীয় সরকার নির্বাচনে আমি কারো পক্ষ নিতে পারি না।’

নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যানের অভিযোগ, আপনি তাঁর বিরোধিতা করেছেন। উপজেলার সব কেন্দ্রে নৌকা বিপুল ভোটে জয় পেলেও আপনার কেন্দ্রে (৭৯ নম্বর কেন্দ্র বনকোট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়) নৌকা পেয়েছে মাত্র ১৬ ভোট এবং ধানের শীষ পেয়েছে ৯৮১ ভোট। এ তথ্য আপনার বিরোধিতার প্রমাণ করে বলে চেয়ারম্যানের মত। এ ব্যাপারে আপনার বক্তব্য কী—জানতে চাইলে সাংসদ বলেন, ‘এ বিষয়ে প্রার্থীর গঠন করা ৭৯ নম্বর ভোটকেন্দ্রের কমিটি ভালো বলতে পারবে।’

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •