cbn  

ওমর ফারুক সোহাগঃ

রাত পোহালেই টেকনাফ উপজেলা ছাত্রলীগের বহুল আকাঙ্ক্ষিত সম্মেলন। ব্যানার পোস্টারে ছেয়ে গিয়েছে গোটা উপজেলার অলিগলি। টক অব দ্য  টেকনাফ কারা হতে যাচ্ছেন সীমান্ত জনপদ টেকনাফ উপজেলা ছাত্রলীগের আগামীর কাণ্ডারি। সরগরম চায়ের দোকান থেকে শুরু করে যেকোনো ধরণের আলাপসালাপে ঠাঁই করে নিচ্ছে আগামীকালের সম্মেলন। বহুমুখী বিশ্লেষণ, জল্পনা কল্পনা, ভবিষ্যদ্বাণী সবকিছুর চুলচেরা যাচাই-বাছাই চলছে মহোৎসবে। মূলত আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু সভাপতি পদে কে আসছেন।

নতুন নেতৃত্বের জয়গান গাওয়া সদ্য প্রয়াত সাবেক এমপি অধ্যাপক মোহাম্মদ আলী পুত্র সাবেক কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক তারেক মাহমুদ রনি নাকি চার মেয়াদে টেকনাফ উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক পদে আসীন থাকা সাইফুল ইসলাম মুন্না। মোটাদাগে এ দুজনের সভাপতি প্রার্থী হবার বিষয়টি আগামীকালের সম্মেলনকে এনে দিয়েছে একটি নতুন মাত্রা। সাধারণ সম্পাদক পদ প্রত্যাশী বহুজনের নাম আসলেও ঘুরেফিরে আলোচনায় জায়গা করে নিচ্ছে সভাপতি প্রার্থী রনি ও মুন্নার নাম। তাদের নিয়ে চলছে জোরেশোরে আলাপআলোচনা। আগামী ২৫ ফেব্রুয়ারী দুপুর ২ টায় টেকনাফ বাসস্ট্যান্ড হোটেল দ্বীপ প্লাজা সংলগ্ন মাঠে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সুলতানের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মুন্নার সঞ্চালনায় সম্মেলনের প্রথম অধিবেশন শুরু হবার কথা রয়েছে। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন কক্সবাজার জেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এডভোকেট ফরিদুল আলম ও সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন কক্সবাজার জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মেয়র মুজিবুর রহমান। এছাড়া কক্সবাজার-৪ আসনের সাংসদ শাহীন আক্তার, জেলা ও উপজেলা আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ, যুবলীগের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত থাকবেন।

তৃণমূল নেতাকর্মীদের প্রত্যাশা নতুন নেতৃত্বের হাতে আসুক টেকনাফ উপজেলা ছাত্রলীগের স্টিয়ারিং। অনেকে তারেক মাহমুদ রনির নেতৃত্বে উপজেলা ছাত্রলীগের প্রতিটি ইউনিট সুসংহত করতে চায়। তারা মনে করে কক্সবাজার তথা দক্ষিণ চট্টলার আওয়ামী রাজনীতির প্রবাদপ্রতিম নেতা সদ্য প্রয়াত সাবেক সাংসদ বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক মোহাম্মদ আলী পুত্র রনির শিরা ধমনীতে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ আদর্শ প্রবাহমান। সে পরীক্ষীত ছাত্রনেতা। ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার প্রতিবাদে ক্লাস নাইনে থাকা অবস্থায় বিএনপি জামাতের রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে তার নেতৃত্বে হ্নীলায় বের হয় প্রতিবাদ মিছিল। চট্টগ্রাম ইসলামিয়া কলেজ ও প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয় পড়বার সময় ১/১১ এর কঠিন সময়ে শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রতি অবিচল থেকে প্রতিবাদ প্রতিরোধে অগ্রভাগে থেকেছে রাজপথে। যার কারণে মূল্যায়িত হয় কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের আলী আহমদ-তাহের কমিটির যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক হিসেবে পদ পেয়ে। রনি এক মানবিক নেতাও বটে।

বিশেষ করে করোনাকালীন যেখানে মানুষ হম্বিতম্বি খেয়ে ঘরবন্দি হয়ে পড়েছিলো, সেখানে নিজের জানবাজি রেখে ‘করোনা ফোর্স হ্নীলা’ সংগঠনের ব্যানারে হতদরিদ্র, অসহায় মানুষের ঘরে ঘরে ত্রাণ পৌঁছে দিয়েছে, রমযানে দিয়েছে ইফতারসামগ্রী। স্থাপন করেছে এক বিরল মানবিক দৃষ্টান্ত। সবকিছু মিলিয়ে একটি পরিশুদ্ধ আওয়ামী পরিবারের সন্তান হিসেবে রনিতেই ভরসা করছে তৃণমূলের নেতাকর্মীরা।

অন্যদিকে কেউকেউ মনে করছে সাইফুল ইসলাম মুন্না  ৮/১০ বছর ধরে উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক পদে আসীন আছে। তারও যথেষ্ট অবদান আছে । তবে  তার উচিত হবে নতুন নেতৃত্ব উঠে আসার পথ সুগম করা। জায়গা ছেড়ে দিয়ে নতুন কাউকে দায়িত্ব হস্তান্তর করা। সর্বোপরি টেকনাফ উপজেলার সচেতন মহল ও আওয়ামীপ্রেমী মানুষের একান্ত চাওয়া আগামীকালের সম্মেলনে তৃণমূলের নেতাকর্মীদের প্রত্যাশা পূরণ করে নতুন নেতৃত্ব নির্বাচিত হবে। তাতে পরে আন্দোলন সংগ্রামের দাবানল থেকে জন্ম নেয়া শিক্ষা শান্তি প্রগতির পতাকাবাহী সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ টেকনাফ উপজেলা শাখা সুসংগঠিত হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •