cbn  

অনলাইন ডেস্ক : দ্বিতীয়বারের মতো মালয়েশিয়ার মাসা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিপি নির্বাচিত হলেন বাংলাদেশি শিক্ষার্থী বশির ইবনে জাফর। দেশটির অন্যতম বৃহৎ বিশ্ববিদ্যালয় মাসা ইউনিভার্সিটির ছাত্র সংসদ তথা ‘স্টুডেন্ট রিপ্রেজেন্টিটিভ কাউন্সিল’ (এসআরসি) নির্বাচনে ভাইস প্রেসিডেন্ট (ভিপি) পদে আবারও জয়লাভ করেন এই শিক্ষার্থী।

২০২১ শিক্ষাবর্ষের ছাত্র সংসদ নির্বাচনে সাত প্রতিদ্বন্দ্বীকে হারিয়ে ৮১৩ ভোটে জয়ী হয়েছেন তিনি। এরমধ্যে মোট ভোট সংখ্যা ১৭৯২। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী পেয়েছেন ৪০৭ ভোট। এছাড়াও বশির ইবনে জাফরের প্যানেলের ৬ জনের মধ্য থেকে ৫ জনই বিজয়ী হয়েছেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

এদের মধ্যে বশির সমর্থিত অন্যান্য প্রার্থীদের মধ্যে প্রেসিডেন্ট পদে হাফিজ মুহাম্মদ উফাফ, ওয়েলফার ব্যুরো পদে বাংলাদেশি শিক্ষার্থী ফয়সাল সাদিক, সোশাল এন্ড কালচারাল ব্যুরো পদে মালয়েশিয়ান শিক্ষার্থী আমীরা এবং স্পোর্টস এন্ড রিক্রিয়েশনাল ব্যুরো পদে আরেক বাংলাদেশি শিক্ষার্থী সোহানুর রহমান জয়লাভ করেন।

বিশ্ববিদ্যালয়টির সকল স্তরের শিক্ষার্থীদের নিয়ে গত ১ ডিসেম্বর থেকে শুরু হওয়া নির্বাচনের প্রথম ও দ্বিতীয় দফা ভোট শেষে সোমবার স্থানীয় সময় বেলা আড়াইটায় ইলেকটোরাল কমিটি কর্তৃক এ ফলাফল প্রকাশিত হয়।

এর আগে গত ২৩ ডিসেম্বর ফলাফল প্রকাশ করার কথা থাকলেও সিনেটের অনুমোদন না পাওয়ায় ইলেকটোরাল কমিটি তা প্রকাশের জন্য নতুন দিন ধার্য করে।

গতবছর এ নির্বাচনে আটজন প্রতিদ্বন্দ্বীকে হারিয়ে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশি বশির এ বিশ্ববিদ্যালয়টির ভিপি হওয়ার গৌরব অর্জন করেন। এবারও তিনি নির্বাচিত হয়েছেন।

জয়ের অনুভূতি জানতে চাইলে বশির ইবনে জাফর বলেন, আমাকে সাপোর্ট দেয়ার জন্য প্রথমত সকল বাংলাদেশি শিক্ষার্থী, মালয়েশিয়ান এবং বিভিন্ন দেশের শিক্ষার্থীবৃন্দসহ দূর থেকে দেশ-বিদেশের সকল প্রিয় মানুষদের আন্তরিক শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা জানাচ্ছি। এ বছর নির্বাচনে জয়ী হওয়াটা ছিলো অনেক কঠিন। তাছাড়া ফলাফল পেতে অনেক দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হয়েছে। ফলাফল প্রকাশ নিয়ে কিছুটা শঙ্কাও ছিলো। সবকিছুর পর কাঙ্ক্ষিত ঘোষণাটি শোনা অবশ্যই আনন্দদায়ক। আমি কৃতজ্ঞ আমার বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী এবং সর্বস্তরের স্টাফদের প্রতি।

মালয়েশিয়ার প্রধান প্রধান বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ডাকসুর মতো স্টুডেন্ট রিপ্রেজেন্টিটিভ কাউন্সিল (এসআরসি) নির্বাচনের আয়োজন করা হয় প্রতিবছর। স্থানীয় শিক্ষার্থীদের জন্য প্রেসিডেন্ট পদটি সংরক্ষিত রাখা হয়। বাকি আরও ৮টি পদ নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আয়োজন করে এই এসআরসি নির্বাচন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •