♦ নরেন্দ্র মোদির কাশ্মীর সফরের প্রতিবাদে পোস্টার

আবদুর রহমান খান

কাশ্মীরে ব্যাপক মানবাধিকার লঙ্ঘনের কারন দেখিয়ে জার্মান সরকার সে দেশের দুটি অস্ত্র বিক্রি প্রতি ষ্ঠানকে ভারতের নিকট ছোট অস্ত্র বিক্রির ছাড়পত্র দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে। ভারতের টেলিগ্রাফ পত্রিকায় খবর দেয়া হয়েছে।

জার্মানি ইউরোপে ভারতের একনম্বর এবং বিশ্বে ছয় নম্বর বৃহৎ বাণিজ্যিক অংশীদার হয়েও আশংকা করছে এ সব ছোট অস্ত্র কাশ্মীরের জনগনের বিরুদ্ধে ব্যাবহার করা হবে।

এর আগেও ভারতের গুজরাট, জম্মু-কাশ্মির, অন্ধ্র প্রদেশ ও মহা রাষ্ট্রে মানবাধিকার লঙ্ঘনের কারণ দেখিয়ে জার্মানি ভারতকে অস্ত্র সরবরাহ বন্ধ্ রাখে ।

সম্প্রতি বেলজিয়ামের একটি অস্ত্র বিক্রেতা প্রতিষ্ঠানন একই কারন দেখিয়ে ভারতের স্পেশাল ফ্রন্টিয়ার ফোর্স (এস এফ এফ ) এর জন্য ২০ কোটি রুপির ছোট অস্ত্র এবং এসল্ট রাইফেল – এর সরবরাহ বাতিল করে দিয়েছে।

নরেন্দ্র মোদির কাশ্মীর সফরের প্রতিবাদে পোস্টার

এদিকে, ভারতের প্রধানমন্ত্রীর আসন্ন কাশ্মীর সফরের প্রতিবাদ জানিয়ে শ্রীনগর এবং আশেপাশের এলাকা রাস্তায় গলিতে দেওয়াল ও লাইট পোস্টে পোস্টার সাটিয়ে দিয়েছে কাশ্মীরের মুক্তিকামী জনতা।

আগামী ২৫ ফেব্রুয়ারির পর যে কোনোদিন নরেন্দ্র মোদির কাশ্মীর সফরে যাবার কথা রয়েছে। আজ কাশ্মীর মিডিয়া সার্ভিসেস এক রিপোর্টে জানিয়েছে, কাশ্মীরের পরিস্থিতি এখন স্বাভাবিক এটা দেখানোর জন্য এ সফরের পরিকমল্পনা করা হয়েছে।

কিন্তু দেওয়ালে দেওয়ালে সাঁটানো ছাপা পোস্টারে উর্দুতে লেখা হয়েছে “কাশ্মীর নরেন্দ্র মোদির সফরকে প্রত্যাখ্যান করছে । মোদির হাতে কাশ্মীরী জনগনের রক্ত। কাশ্মিরে বিজেপি’র হিন্দুত্ববাদ রোপণ করতে চাইছে মোদী । জনসংখার অনুপাত বদলে দিয়ে কাশ্মীরের মুসলিম ঐতিহ্য এবং সংস্কৃতির বিলোপ ঘটাতে চায় নরেন্দ্র মোদী।”

এদিকে, ভারত অধিকৃত জম্মু কাশ্মীরে বিভিন্ন এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করে , রাস্তায় বেরিগেড এবং নিরাপত্তা চৌকি বসিয়ে নিরাপত্তা কঠোর করা হয়েছে। একই সাথে শ্রীনগরের রাস্তায় টহল দিচ্ছে মিলিটারি কনভয়। শুক্রবার বাদ্গাম জেলায় কাশ্মীরি গেরিলাদের সাথে সংঘর্ষে দুজন পুলিশ নিহত হবার প্রেক্ষিতে নিরাপত্তা ব্যাবস্থা জোরদার করা হয়েছে।

এরই মধ্যে , বান্দিপোরা জেলায় স্থানীয় দুজন যুবকে আটক করেছে পুলিশ। এলাকায় মুজাহেদিন যোদ্ধাদের সহায়তা করার অভিযোগ আনা হয়েছে তাদের বিরুদ্ধে।

এ ছাড়া, সরকারি বাহিনীর উচ্ছেদ তৎপরতা নিয়ে খবর প্রকাশের জন্য বান্দিপোরা এলাকায় সাযাদ গুল নামের একজন সাংবাদিকে আটক করা হয়েছে। সাযাদ গুল কাশ্মীর প্রেসক্লাবের কাছে চিঠি পাঠিয়ে জানিয়েছে, তার বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হচ্ছে যে, সে নাকি পুলিশের উদ্দেশ্যে পাথর ছুঁড়ে মেরেছে।

গতবছর জুনে কাশ্মীরে একটি নিবর্তণমূলক মিডিয়া আইন চালু করে সাংবাদিকদের হয়রানি করা হচ্ছে। এ আইনের প্রতিবাদ জানাচ্ছেন কাশ্মীরের সাংবাদিকগণ।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •