বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের কক্সবাজার আঞ্চলিক মানবাধিকার সম্মেলন

মাদকের সাথে কোনো আপোষ নেই- পুলিশ সুপার হাসানুজ্জামান

প্রকাশ: ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৪:০৮ , আপডেট: ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৭:৪৪

পড়া যাবে: [rt_reading_time] মিনিটে


শাহেদ মিজান, সিবিএন:

কক্সবাজারের পুলিশ সুপার মোঃ হাসানুজ্জামান বলেছেন, মাদকের সাথে কোনো ধরণের আপোষ হবে না। মাদক প্রতিরোধে পুলিশ থামবে না। শতভাগ নির্মূল না হলেও পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে আনতে শক্তহাতে কাজ করা হচ্ছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত জিরো টলারেন্স লক্ষ্য নিয়ে মাদক নিয়ন্ত্রণে পুরো জেলায় কাজ করছে পুলিশ।

শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন আয়োজিত মাদক কক্সবাজার আঞ্চলিক মানবাধিকার সম্মেলন-২০২১ এর ‘মাদক নির্মূল ও পরিবেশ রক্ষায় করণীয়’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশে বর্তমানে মাদক ক্যান্সারের মতো রূপ নিয়েছে। তবে মাদকের ভয়াবহতা আরো ভয়ংকর। কারণ ক্যান্সার আক্রান্ত হলে শুধু একজন মানুষেরই ক্ষতি হয়। কিন্তু একজন মাদক সেবনকারী এবং মাদক ব্যবসায়ী পুরো সমাজকে ধ্বংস করে দেয়। তাই এ ব্যাধী থেকে দেশকে মুক্ত করার জন্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী নয়; সব মানুষকে দায়িত্ব পালন করতে হবে। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে তথ্য দিয়ে সহায়তাসহ সমাজের তৃণমূল পর্যন্ত মাদক বিস্তার রোধে জনসচেতনতা তৈরি করতে হবে।
মাদক সংশ্লিষ্ট কাউকে ছাড় দেয়া হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়ে পুলিশ সুপার বলেন, মাদক ব্যবসার সিন্ডিকেটের সাথে অনেক ধরণের মানুষ জড়িত। রয়েছে গড়ফাদার, পাচারকারী, বহনকারী, সরবরাহকারী থেকে শুরু করে খুচরা বিক্রেতা। সবশেষে রয়েছে সেবনকারী। আমাদের তালিকায় সবাই সমান অপরাধী। তাই কাউকে ছাড় দেয়া হবে না।

বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের জেলা সভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যাপিকা অ্যাথিন রাখাইনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন চৌধুরীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত উক্ত আলোচনা সভায় প্রধান বক্তার বক্তব্যে সংগঠনের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক ড. সাইফুল ইসলাম দিলদার বলেন, বিশ্বের ৪১টি দেশের আমাদের সংগঠনের কার্যক্রম চলমান রয়েছে। আমরা বিশ্বজুড়ে মানবাধিকার রক্ষায় নিরলসভাবে কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। ২০০০ সাথে আমাদের কাজের স্বীকৃতি দিয়েছে জাতিসংঘ। বাংলাদেশেও এভাবে কাজ করে যাচ্ছে বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন। ইতিমধ্যে দেশের একটি শীর্ষ মানবাধিকার সংগঠনের রূপ নিয়েছে এই সংগঠন। ভবিষ্যতেও এই ধারবাহিকতা অব্যাহত রেখে সব ধরণের মানবাধিকার রক্ষায় বদ্ধপরিকর হয়ে আমরা কাজ করে যাবো।

আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন, কক্সবাজার সদর উপজেলা চেয়ারম্যান কায়সারুল হক জুয়েল, বৌদ্ধ কল্যাণ ট্রাস্টের ট্রাস্টি এড. দিপংকার বড়ুয়া পিন্টু, জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক অধ্যাপক প্রিয়তোষ শর্মা চন্দন, কক্সবাজার উপজেলা ভাইসচেয়ারম্যান হামিদার তাহের, রামু উপজেলা ভাইসচেয়ারম্যান আফসানা জেসমিন পপি, জেলা পরিষদ সদস্য আসমাউল হুসনা, বাংলাদেশ মানবাধিকার ঢাকা উত্তরের সাধারণ সম্পাদক গোলাম কিবরিয়া, কমিশন খাগড়াছড়ি জেলা সভাপতি এড. মহিউদ্দীন কবির, নওগাঁ জেলা সাধারণ সম্পাদক মৌসুমী, ঢাকার বিশেষ প্রতিনিধি আসমা আকতার বেবি, বান্দরবান জেলা সাধারণ সম্পাদক নীলিমা বেগম, মুন্সিগঞ্জ জেলা সাধারণ সম্পাদক এস.এম নাসির উদ্দীন।

অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, কক্সবাজার সিটি কলেজের প্রভাষক রোমেনা আকতার, বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের জেলা সহ-সভাপতি সম্পাদক মুকিম খান, সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল ইসলাম সোহেল, রামু উপজেলা সভাপতি সুরেশ বড়ুয়া বাঙ্গালী, উখিয়া উপজেলা সাধারণ সম্পাদক আনিছুল হক, কক্সবাজার পৌর শাখা সভাপতি ফাহাদ আলী ফাহাদ।
আলোচনা সভায় বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন জেলা ও উপজেলাসহ বিভিন্ন ইউনিটের নেতৃবৃন্দ এবং রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

আলোচনা সভায় পুলিশ মোঃ হাসানুজ্জামান উপস্থিত সকলকে মাদক থেকে দূরে থাকা ও প্রতিরোধে কাজ করতে শপথবাক্য পাঠ করান।

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •