cbn  

মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

কোভিড-১৯ মহামারীর কারণে প্রায় এক বছর ধরে বন্ধ থাকা প্রাইমারি স্কুল গুলো সীমিত আকারে খোলার জন্য সরকারের উচ্চ পর্যায় থেকে যেকোন সময় ঘোষনা আসতে পারে। আগামী মার্চে প্রথম দিকে স্কুল খোলার এই সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে। তাই সকল প্রাইমারি স্কুল কর্তপক্ষকে জাতীয় স্বাস্থবিধি ও সরকারের এ সংক্রান্ত যাবতীয় নির্দেশনা মেনে প্রাইমারি স্কুল গুলো খোলার সর্বোচ্চ প্রস্তুতি গ্রহণ করতে হবে। এ বিষয়ে গ্রহণ করতে হবে সর্বাধিক সতর্কতা। যাতে সরকারের ঘোষনা আসার সাথে সাথে স্কুল গুলো খোলা যায়।

সোমবার ১৫ ফেব্রুয়ারী কক্সবাজার জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের উদ্যোগে ইউনিসেফ এর সহায়তায় “Orientation on school effectiveness program” শীর্ষক দিনব্যাপী এক কর্মশালার সমাপনী অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য দিতে গিয়ে কক্সবাজারের জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার (ডিপিইও) মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান এ কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন-সুন্দর ও সুখী সমৃদ্ধশালী বাংলাদেশ গড়তে হলে নতুন প্রজম্মের মেধা ও মননের বিকাশ ঘটাতে হবে। সুনাগরিক হিসাবে গড়ে তুলতে হবে। আর সেজন্য শিশুদের উপযুক্ত ও ফাউন্ডিং ক্ষেত্র হচ্ছে প্রাইমারি স্কুল গুলো। তাই প্রাইমারি স্কুলতে সরকারের পাশাপাশি ব্যবস্থাপনা কমিটি, শিক্ষক, সংশ্লিষ্ট অন্যান্য কমিটি, স্থানীয় জনগোষ্ঠীকে সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে। ঝরেপড়া সকল শিক্ষার্থীকে স্কুলে ভর্তি নিশ্চিত করতে হবে। ঝরে পড়ার কারণ নির্নয় করে তা সমাধানের উদ্যোগ নিতে হবে। স্কুল খোলা সাপেক্ষে সকল শিক্ষার্থীকে স্কুলে আসা নিশ্চিত করতে হবে।

ডিপিইও মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান আরো বলেন, কোভিড-১৯ মহামারীতেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জানুয়ারীর প্রথম দিনে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নতুন বই উপহার দিয়ে একটা অসাধারণ দৃষ্ঠান্ত স্থাপন করেছেন। এই কর্মশালা প্রাইমারি স্কুল গুলোতে মান সম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করতে ব্যাপক ভূমিকা রাখবে বলে তিনি দৃঢ় আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

কক্সবাজার জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত উক্ত কর্মশালায় রিসোর্স পার্সন ছিলেন-জেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ শহীদুল আজম ও উপজেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার বেলাল হোসাইন। এসময় জেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ শহীদুল আজম বলেন, New normal situation এর মেনে স্ব স্ব বিদ্যালয়ের পারিপার্শ্বিকতা ও সার্বিক পরিবেশের উপর ভিত্তি করেই প্রাইমারি স্কুল এর কমিটি গুলোকে কাজ করতে হবে।

গুরুত্বপূর্ণ এই কর্মশালায় কক্সবাজার সদর উপজেলার ১২ টি প্রাইমারি স্কুল এর ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি, অডিট কমিটির সভাপতি, একজন সহকারী শিক্ষক সহ মোট ৩৬ জন প্রশিক্ষনার্থী অংশ নেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •