cbn  

বার্তা পরিবেশক:

কক্সবাজার সদরের ঈদগাঁওয়ে ২নং পোকখালী ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের উত্তর গোমাতলী এলাকায় লবণ চাষীকে জিম্মি করে চাঁদা দাবী এবং তা পরিশোধ না করায় হামলা চালিয়েছে চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা। গতকাল ১১ ফেব্রুয়ারী (বৃহস্পতিবার) রাত আনুমানিক সাড়ে ৮টার দিকে লবণ বিক্রির টাকা নিয়ে বাড়িতে ফেরার পথে ইসলামপুরের হাঙরঘোনা এলাকার পশ্চিমে ব্রিজের পাশে চিহ্নিত চাঁদাবাজ ও ডাকাত গুরামিয়া বাহিনী কর্তৃক পরিকল্পিত ভাবে এই হামলা চালানো হয়েছে বলে জানা গেছে। হামলায় গুরুত্বর আহত হয় লবণ চাষী আব্দুল্লাহ। এসময় তার সাথে থাকা লবণ বিক্রির নগদ ৪লক্ষ ২০ হাজার টাকাও ডাকাতি করে নিয়ে নিয়েছে ওই সন্ত্রাসী চক্র।

ভুক্তভোগী আব্দুল্লাহর বক্তব্য মতে- হামলা ও ডাকতির সাথে জড়িত উত্তর গোমাতলী ঘাইট্টখালী এলাকার সাহাব মিয়ার তিন ছেলে যথাক্রমে আব্দুল হক গুরা মিয়া, আব্দুল্লাহ ও ইয়াসিন উল্লাহসহ তাদের পালিত অঙ্গাতনামা বাহিনীর সদস্যরা। তারা প্রথমে তাকে প্রাণে মেরে ফেলার চেষ্টা করে। এতে ব্যার্থ হয়ে সাথে থাকা লবণ বিক্রির নগদ ৪লক্ষ ২০হাজার টাকা ডাকাতি করে ছিনিয়ে নিয়ে যায়।

জানা গেছে- অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে এর আগেও লবণ চাষিদের কাছে চাঁদা দাবী, লবণ মাঠ দখল, লবণ লোটের চেষ্টার অভিযোগ রয়েছে। ইতিপূর্বে ভুক্তভোগী আব্দুল্লাহর আপন বড় ভাই আমান উল্লাহ পিতা-বশির আহমদ তাদের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ ও উপরে উল্লেখ্য এম,আর মামলা দায়ের করেছিলেন। যা স্হানীয় খবর এর কাগজেও সংবাদ হয়েছিলো বলে জানান ভিকটিমের এই বড় ভাই। তিনি আরো বলেন- তার ভাইকে যখন হামলা করা হয় ও দেশি তৈরি বন্ধুক দিয়ে আঘাত করা হচ্ছিলো তখন শুধু একটি কথা আসামী গনের মুখে বার বার শুনা যাচ্ছিলো- হয় টাকা দে নয় জমি দে; কিছু না দিলে গোমাতলীতে বসবাস করতে দিবো না এবং তাদের বিরুদ্ধ করা সকল মামলা ও অভিযোগ তুলে নিয়ে তাদের দাবীকৃত চাঁদা পরিশোধের জন্য ৪৮ ঘন্টা সময় বেঁধে দেয়। আর যদি চাঁদা না দিলে লবণের মাঠ দখলে যাবার ও লবণ লুটের হুমকি দিয়ে যায় বলে জানায়।

এই ব্যপারে ভিকটিম আব্দুল্লাহ পিতা-বশির আহমদ এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি অসুস্থতার কারনে বেশি কথা না বলে ও তার ভাইয়ের ও সাক্ষী গণের বলা কথা সত্যি ও তিনি তার উপরে হওয়া বর্বরোচিত হামলা ও টাকা ডাকাতির ঘটনার সুষ্ট তদন্ত পূর্বক বিচার দাবী করেন। ভিকটিমের পরিবার মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানান।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •