cbn  

ছোটন কান্তি নাথ :
কক্সবাজারের পেকুয়ায় সামাজিক বনায়নের উপকারভোগী ৪০ জনের মাঝে লভ্যাংশের চেক বিতরণ করা হয়েছে। মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার পর বাগানের খাড়া গাছ বিক্রি করে উপকারভোগীর প্রাপ্য লভ্যাংশ হিসেবে তারা পেয়েছেন প্রায় ৩৪ লক্ষ টাকা। কক্সবাজার-১ আসনের সংসদ সদস্য ও চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ জাফর আলম এমএ প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে উপকারভোগীদের মাঝে লভ্যাংশের এই পরিমাণ টাকার চেক বিতরণ করেন।
এ উপলক্ষে বুধবার বিকেল চারটার দিকে পেকুয়ার শিলখালী ইউনিয়নের জারুলবুনিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে আয়োজন করা হয় চেক বিতরণ এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে। চট্টগ্রাম দক্ষিণ বনবিভাগের বিভাগীয় বনকর্মকর্তা (ডিএফও) মো. সফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন কক্সবাজার-১ (চকরিয়া-পেকুয়া) আসনের এমপি আলহাজ জাফর আলম। বিশেষ অতিথি ছিলেন পেকুয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মোতাছেম বিল্যাহ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কাশেম, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য গিয়াস উদ্দিন, বারবাকিয়া রেঞ্জ কর্মকর্তা মো. আবদুল গফুর মোল্লা, শীলখালী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুল হোছাইন, টৈটং ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান জাহেদুল ইসলাম চৌধুরী, রাজাখালী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ছৈয়দ নূর, আওয়ামী লীগ নেতা ওয়াহিদুর রহমান ওয়ারেসি প্রমূখ। এ সময় বিভিন্ন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক এবং সামাজিক বনায়নের উপকারভোগী ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।
এমপি জাফর আলমের ব্যক্তিগত সহকারী আমিন চৌধুরী জানান, সামাজিক বনায়নের উপকারভোগীদের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে ৩৩ লক্ষ ১৬১২০ টাকার চেক। এ উপলক্ষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানেরও আয়োজন করা হয়। এতে গান পরিবেশন করেন মীরাক্কেল তারকা ও কমেডিয়ান কমর উদ্দিন আরমান এবং আরটিভির শিল্পী শাহরিয়ার চৌধুরী।
এ ব্যাপারে চট্টগ্রাম দক্ষিণ বনবিভাগের বারবাকিয়া রেঞ্জ কর্মকর্তা মো. আবদুল গফুর মোল্লা বলেন, রেঞ্জের অধীন পহরচাঁদা বনবিটের ২০০৩-০৪ আর্থিক সনে সৃজিত ৪০ হেক্টর সামাজিক বনায়ন তথা বাগান সৃজন করে ৪০ জনকে উপকারভোগী নির্বাচিত করা হয়। সেই বনায়নের মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ায় ২০১৮-১৯ সনে বাগানের খাড়া গাছসমূহ দরপত্রের মাধ্যমে বিক্রয় করা হয়। এর পর চুক্তি মোতাবেক ৪০ জন উপকারভোগীর প্রত্যেককে লভ্যাংশের ৮২৯০৩ টাকার চেক প্রদান করা হয়েছে।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সংসদ সদস্য এবং বন, পরিবেশ ও জলবায়ু মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য আলহাজ জাফর আলম বলেন, আমাদের জীবনের প্রয়োজনে বন এবং পরিবেশ রক্ষা করতে সবাইকে। এই বন, জঙ্গল যদি আমরা ধ্বংস করে ফেলি তাহলে ভবিষ্যত প্রজন্ম নিরাপদে বসবাস করতে পারবে না। তাই প্রত্যেককে বন, পরিবেশ ও প্রতিবেশ রক্ষায় সোচ্চার ভূমিকা রাখতে হবে।
এমপি জাফর আলম বলেন, ‘বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বে উন্নয়নের মহাসড়কে দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। একইসাথে দেশের প্রত্যেক মানুষকে কোন না কোনভাবে সরকারী সুযোগ-সুবিধা দেওয়া হচ্ছে। যার অংশ হিসেবে সামাজিক বনায়ন সৃজন করে দিয়ে ৪০ জনকে উপকারভোগী নির্বাচন করে দেওয়ায় বুধবার একসঙ্গে লাখের কাছাকাছি লভ্যাংশের টাকা হাতে পাচ্ছেন। এই টাকা দিয়ে ভবিষ্যত জীবন সুন্দর করে গড়ে তুলতে সহায়ক হবে।’

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •