cbn  

বার্তা পরিবেশক:
হোটেল ভাড়ার দেয়ার চুক্তি করে টাকা গ্রহণ করে প্রতারণার অভিযোগ এনে কক্সবাজার কলাতলীর হক গেস্ট হাউজের মালিক হাজী সিরাজুল হকের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন এ.জেড নূর মোহাম্মদ আজাদ নামে এক ব্যবসায়ী।

বৃহস্পতিবার (৪ ফেব্রুয়ারি) মোট ১০ লাখ টাকা পাওনা দাবি করে কক্সবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলাটি করেছেন এ.জেড নূর মোহাম্মদ আজাদ। তিনি মেহেদী আজাদ প্রপার্টিজ লিমিটেড কক্সবাজার এর প্রোপাইটর ও চকরিয়া শিকলঘাট থ্রী স্টার শপিং সেন্টারের এমডি।

মামলা এজাহারে এ.জেড নূর মোহাম্মদ আজাদ জানান, হক গেস্ট হাউজ ভাড়া দেয়ার কথা বলে মালিক হাজী সিরাজুল হক ব্যবসীয় এ.জেড নূর মোহাম্মদ আজাদের কাছ থেকে ৬ লাখ টাকা গ্রহণ করেন। ২০২০ সালের ১ সেপ্টেম্বর নোটারি পাবলিকের মাধ্যমে চুক্তি মাফিক এই টাকা গ্রহণ করেন হাজী সিরাজুল হক। চুক্তি মতে, লভ্যাংশসহ মোট ১০ লাখ টাকার বিপরীতে ২০২০ সালের ১ নভেম্বর হোটেলটি এ.জেড নূর মোহাম্মদ আজাদকে বুঝিয়ে দেয়ার কথা। টাকার মেয়াদ শেষ হলে পুনরায় হোটেলটি ফিরিয়ে দেয়া কথা হয়।

এজাহারে এ.জেড নূর মোহাম্মদ আজাদ অভিযোগ করেন, চুক্তি মতে ২০২০ সালের ১ নভেম্বর হোটেলটি বুঝিয়ে না দিয়ে নানা তালবাহনা শুরু করেন হক গেস্ট হাউজের মালিক হাজী সিরাজুল হক। এভাবে আজ-কাল বলে তিনমাস অতিবাহিত হলেও শেষ হোটেল বুঝিয়ে দেননি তিনি। উল্টো এ.জেড নূর মোহাম্মদ আজাদকে হুমকি প্রদর্শন করেন এবং টাকা নেয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেন। শেষে বাধ্য হয়ে আদালতের শরণাপন্ন হন এ.জেড নূর মোহাম্মদ আজাদ।

বাদি পক্ষের আইনজীবি তৌহিদুল আনোয়ার বলেন, আদালত এ.জেড নূর মোহাম্মদ আজাদ এর এজাহারটি মামলা হিসেবে রুজু করে তদন্তের জন্য জেলা পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছেন।

ভুক্তভোগী এ.জেড নূর মোহাম্মদ আজাদ বলেন, বহু কষ্টে জমানো আমার ব্যবসার সঞ্চয়ের সব টাকা হাজী সিরাজুল হককে তুলে দিয়েছিলাম। কিন্তু তিনি আমার সাথে প্রতারণা করেছেন। আমি আদালতের কাছে তার বিচার দাবি করছি।
অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চাইলে হক গেস্ট হাউজের মালিক হাজী সিরাজুল হক এ.জেড নূর মোহাম্মদ আজাদ বলে জানান।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •