এহসান আল কুতুবীঃ
কক্সবাজার অঞ্চলের বেকার যুবক-যুবতিদের কারিগরি প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষ নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে কাজ করছে স্কাস টেকনিক্যাল ট্রেনিং সেন্টার।

ইতোমধ্যে এই ট্রেনিং সেন্টারে বিভিন্ন পেশা/অকুপেশনে ২০০জন শিক্ষার্থী সফলতার সাথে দক্ষতা উন্নয়নমূলক প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেছে। জাতীয় কারিগরি শিক্ষা নীতিমালার আলোকে তাদেরকে বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড জাতীয় কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষা এবং প্রশিক্ষণ কাঠামো (এনটিভিকিউএফ) অনুযায়ী
মূল্যায়ন করা হয়।

বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার (২৮-২৯ জানুয়ারী) ট্রেনিং সেন্টারের কলাতলী সংলগ্ন নিজস্ব ভবনে অনুষ্ঠিত এই মূল্যায়ণ (অ্যাস্সেমেন্ট) কার্যক্রমে কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের প্রতিনিধি এবং শিল্প প্রতিষ্ঠান থেকে আগত মুল্যায়নকারী উপস্থিত থেকে মুল্যায়ন কার্যক্রম পরিচালনা করেন।

এ সময় কার্যক্রমে টেকনাফ এবং উখিয়া থেকে কম্পিউটার আপারেশন, মোবাইল ফোন সার্ভিসিং, ইলেকট্রিক্যাল ইন্সটলেশন এবং মেইনটেন্যান্স এবং টেইলরিং এন্ড ড্রেস মেকিং পেশার শিক্ষার্থীগণ অংশগ্রহণ করেন।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, ট্রেনিং সেন্টারে
বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষানীতিমালা ২০১১ অনুযায়ী আরপিএল (পূর্ব শিখনের স্বীকৃতি) পদ্ধতি অনুসরণ করে মুলায়ণ হয়। যা
আন্তর্জাতিক মানের সনদায়ন। জাতীয় সনদায়নের যারা কম্পিটেন্ট হবেন তারা দেশের এবং বিদেশের যে কোন স্থানে উপযুক্ত বেতনে নিযুক্ত হতে পারবেন। পাশপাশি নিজেরা উদ্যোক্তা হিসেবে কাজ করতে পারবেন।

ট্রেনিং সেন্টারের অধ্যক্ষ মো: মো: মারুফ বিল্লাহ জাভেদ বলেছেন, কক্সবাজারের স্থানীয় জনগণ কারিগরি শিক্ষা এবং চাকুরির ক্ষেত্রে অন্য জেলার তুলনায় বেশ পিছিয়ে রয়েছে। কক্সবাজারের যেহেতু সরকারের নানামুখী উন্নয়ন কার্যক্রম চলমান রয়েছে। সেহেতু অনেক দক্ষ জনশক্তির চাহিদা রয়েছে। আর এই চাহিদাকে সামনে রেখে বিভিন্ন ধরণের পেশার প্রশিক্ষণ কার্যক্রম এবং জাতীয় সনদায়ন চালু রাখা হয়েছে। টেইলরিং, ড্রেস মেকিং, ইলেকট্রিক্যাল হাউস ওয়্যারিং, কম্পিউটার অফিস অ্যাপ্লিকেশন, মোবাইল ফোন সার্ভিসিং, ব্লক বাটিক এন্ড প্রিন্টিং, সার্টিফিকেশন ইন বিউটিফিকেশন, ড্রাইভিং, প্লাম্বিং (পাইপ ফিটিংস), মেশন (রাজমিস্ত্রি),
ওয়েল্ডিং (গ্রিল মেকার), টাইলস্ ফিটিং, বিউটি পার্লার এবং রড বাইন্ডিং এর কাজ এখানে হাতে কলমে শেখানো হচ্ছে।

দুদিনব্যাপী এই মূল্যায়ণ (অ্যাস্সেমেন্ট) কার্যক্রম বৃহস্পতিবার পরিদর্শন করেছেন কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ( সার্বিক) জাহিদ ইকবাল। এ সময় তিনি এই প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রমকে আরো গতিশীল করতে সার্বিক সহযোগিতা করার আশ্বাস দেন। একইসাথে তাই কক্সবাজারের বেকার যুবক-যুবতিদের স্বনির্ভর ও দক্ষ করে তুলতে মহতী উদ্যোগের জন্য স্বাগত জানান।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও) এর কো-অর্ডিনেটর মো:
সিরাজুল ইসলাম, কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষা এবং প্রশিক্ষন (টিভিইটি) বিশেষজ্ঞ মো: ফিরোজ আলম মোল্লা, বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের কোয়ালিটি এ্যাসুরেন্স আফিসার কল্যান ব্রত দাস, স্কাস টেকনিক্যাল ট্রেনিং সেন্টারের ভাইস চেয়ারম্যান ফাতেমা আনকিজ ডেইজী।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •