মহেশখালী সংবাদদাতা :
কক্সবাজারের মহেশখালী উপজেলার মাতারবাড়িতে চিংড়ি প্রজেক্টের ৪ একর জমি জবর দখল করে গিলে খাচ্ছে একটি ক্ষমতাধর সিন্ডিকেট। এ ঘটনায় স্থানীয়ভাবে বিচার দিয়ে সমাধান পায়নি ভুক্তভোগি পরিবার। এ নিয়ে ৭ জানুয়ারি মহেশখালী সার্কেলের সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার বরাবর একখানা অভিযোগ দায়ের করে মাতারবাড়ি ইউনিয়নের মাইজপাড়ার বাসিন্দা মৃত হাজী আফলাতুনের ছেলে ভূক্তভোগি জাফর আলম।
অভিযোগ সূত্রে জানাগেছে, মাতারবাড়ি মৌজার (যার খতিয়ান নং ৫০৪০) এর মালিক জাফর আলম গং থেকে কৌশলে লিখিত চুক্তি না করে ৩ বছরের জন্য মৌখিক চুক্তির আশ্রয় নিয়ে গেল ২০১৮ সাল হতে চিংড়ি প্রজেক্টের ৪ একর জমি জবর দখল করে খাচ্ছে মাতারবাড়ি যুবলীগের সভাপতি কাশেম গং।
ওই মৌখিক চুক্তিতে শর্ত ছিলো প্রতি বছর লাগিয়ত বাবৎ ১ লক্ষ টাকা করে ৩ বছরে মোট ৩ লক্ষ টাকা জমির মালিকদের কাছে পরিশোধ করতে হবে। কিন্তু কোনো ধরণের লাগিয়তের টাকা পরিশোধ না করে উল্টো কাশেম গং ওই জমিতে চাষাবাদ করে আসছে। ভূক্তভোগিরা জমির লাগিয়তের টাকা চাইলে কাশেম গং বলে, যদি এ জমি দাবী করো তাহলে তোদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা আছে। এতে নিরুপায় হয়ে ভুক্তভোগি জাফর আলম বিভিন্ন দপ্তরে কাশেম গং এর বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করে।
শুধু তাই নয়, কাশেম গং ক্ষমতার প্রভাব দেখিয়ে বিচারের মুখোমুখি থেকেও কৌশলে ফিরে যায়। যার কারনে তারা ধরাছোঁয়ার বাহিরে থেকে যায়। এদিকে বিষয়টি কোনোভাবে সমাধান না হওয়ায় জাফর আলম মহেশখালী সার্কেলের সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপারের কাছে এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার উভয় পক্ষকে কাল ২৭ জানুয়ারি সকাল ১০টায় প্রয়োজনীয় প্রমাণাদি নিয়ে তার কার্যালয়ে হাজির হতে নোটিশ দিয়েছেন।
অভিযোগের আলোকে বিবাদীরা হলেন, মৃত আবুল হোছনের ছেলে ও মাতারবাড়ি যুবলীগের সভাপতি মোহাম্মদ কাশেম একই এলাকার এজাহার মিয়ার ছেলে মো. সেলিম, মৃত সোলতান মোহাম্মদের ছেলে মফিজ উদ্দিন, মৃত মকবুল আহমদের ছেলে জিল্লুর রহমান ওরফে সোনাইয়া ও জাফর আলমের ছেলে সাহাব উদ্দিন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •