ছোটন কান্তি নাথ:
কক্সবাজারের চকরিয়া পৌরসভার একাংশ এবং কাকারা ও লক্ষ্যারচর ইউনিয়নের শিশু-কিশোর ও যুবকদের একমাত্র খেলাধুলার স্থান হচ্ছে কাকারা শাহ উমরাবাদ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ। বিশালায়তনের এমন মাঠ আশপাশে আর কোনটিই নেই। কিন্তু এই বিদ্যালয়ের নতুন একাডেমিক ভবন নির্মাণের জন্য কর্তৃপক্ষ খেলার মাঠকেই নির্দিষ্ট করে।
অথচ বিদ্যালয়েরই বিকল্প জায়গা থাকার পরও মাঠের মধ্যেই একাডেমিক ভবন নির্মাণের খবরে ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে এলাকাবাসীর মধ্যে। তারা খেলার মাঠ রক্ষার দাবিতে মাঠে নামার ঘোষণা দেয় দুইদিন আগে। সেই ঘোষণার সাথে একাত্মতা প্রকাশ করে জেলার আলোচিত সামাজিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন স্বাধীন মঞ্চ। এর পর স্বাধীন মঞ্চের ভারপ্রাপ্ত সমন্বয়ক সৌরভ মাহাবী, উপ-সমন্বয়ক সরওয়ার ইমরান ও আবদুল আজিজ আজাদ সরজমিন পর্যবেক্ষণ করে বিদ্যালয়েরই বিকল্প জায়গা থাকার বিষয়টি নিশ্চিত হন।
অবশেষে সেই ক্ষোভ প্রশমিত করেছেন কক্সবাজার-১ আসনের এমপি আলহাজ জাফর আলম। তিনি সোমবার সরজমিন গিয়ে খেলাধুলার মাঠের বদলে বিদ্যালয়েরই বিকল্প জায়গায় (পরিত্যক্ত ডোবা) একাডেমিক ভবন নির্মাণ করা হবে বলে এলাকাবাসীকে আশ্বস্ত করেন।
এ সময় সংসদ সদস্য জাফর আলম বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এবং এলাকাবাসীকে বলেন, ‘বিদ্যালয়েরই পরিত্যক্ত ডোবা ভরাট করেই নতুন একাডেমিক ভবন নির্মাণ করা হবে। এজন্য ডোবা ভরাট করতে যত টাকার প্রয়োজন হবে তা আমি নিজেই বহন করবো।’
সরজমিন পরিদর্শনের সময় এমপির সাথে ছিলেন বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি মো. সাইফুদ্দীন খালেদ, প্রধান শিক্ষক জসীম উদ্দিন, আওয়ামী লীগ নেতা আবু মুছা, কাকারা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. শওকত ওসমান, ব্যাংকার বেলাল উদ্দিন প্রমূখ।
বিদ্যালয়ের মাঠ রক্ষার আন্দোলনে নেতৃত্ব দেওয়া ছাত্রনেতা মিরাজ উদ্দিন রাজিব বলেন, ‘বিদ্যালয়েরই জায়গা থাকা সত্ত্বেও খেলার মাঠে একাডেমিক ভবন নির্মাণ না করে বিকল্প জায়গায় ভবন নির্মাণের দাবিতে আন্দোলনের কর্মসূচী ঘোষণা করা হয়। এর পর স্বেচ্ছাসেবী ও সামাজিক সংগঠন স্বাধীন মঞ্চ আমাদের যৌক্তিক দাবির সাথে একাত্মতা প্রকাশ করে। পাশাপাশি আমরা মাননীয় এমপি এবং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সৈয়দ শামসুল তাবরীজ মহোদয়ের কাছে স্মারকলিপিও প্রদান করি।’
ছাত্রনেতা রাজিব বলেন, ‘অবশেষে আমাদেরই অভিভাবক মাননীয় এমপি মহোদয় সরজমিন এসে বিদ্যালয়েরই পরিত্যক্ত ডোবায় একাডেমিক ভবন নির্মাণ করতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দিয়ে ডোবা ভরাটে যাবতীয় খরচ বহনের ঘোষণা দেন। এজন্য আমরা এমপি মহোদয়ের প্রতি কৃতজ্ঞ।’
কাকারা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. শওকত ওসমান বলেন, ‘প্রায় চার কোটি টাকা ব্যয়ে শাহ উমরাবাদ উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন একাডেমিক ভবন নির্মাণ করছে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর। খেলার মাঠ অক্ষত রেখে পরিত্যক্ত ডোবা ভরাট করে নতুন একাডেমিক ভবন নির্মাণের জন্য এমপি মহোদয় পরিদর্শন করে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দিয়েছেন। মঙ্গলবার থেকে পরিত্যক্ত ডোবা ভরাটের কাজ শুরু করা হবে। এতে এলাকাবাসী এবং খেলাধুলায় আগ্রহী শিশু-কিশোর-যুবকেরা খুশিতে আত্মহারা হয়ে উঠেন।’
স্বাধীন মঞ্চের ভারপ্রাপ্ত সমন্বয়ক সৌরভ মাহাবী বলেন, ‘তরুণ প্রজন্মকে মাদকসহ অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড থেকে দূরে রাখতে খেলাধুলার বিকল্প নেই। কিন্তু বিদ্যালয়েরই বিকল্প জায়গা থাকার পরও খেলার মাঠ নষ্ট করে একাডেমিক ভবন নির্মাণ করার উদ্যোগটা ছিল একেবারেই অযৌক্তিক। তাই এলাকাবাসীর দাবির প্রতি একাত্মতা প্রকাশ করে খেলার মাঠ রক্ষার দাবিতে স্বাধীন মঞ্চ সোচ্চার হয়। অবশেষে সম্মিলিত প্রয়াসে খেলার মাঠটি রক্ষা হলো।’

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •