ছোটন কান্তি নাথ :
কক্সবাজার-১ আসনের সংসদ সদস্য ও চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ জাফর আলম এমএ বলেছেন, মুজিববর্ষে একসঙ্গে ৭০ হাজার গৃহহীন পরিবারকে বাড়ি দিয়ে বিশ্বের মধ্যে নজির স্থাপন করেছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা দেশরত্ন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। যাদের কোন জমি ও বাড়ি ছিল না এমন পরিবারগুলো শান্তির নীড় পেয়ে নতুন করে স্বপ্ন দেখছে বেঁচে থাকার। শেখ হাসিনা আজ রাষ্ট্র ক্ষমতায় আছেন বলেই প্রথমদফায় একসঙ্গে ৭০ হাজার পরিবার বাড়ি পেয়ে পুনর্বাসিত হয়েছেন। যা বিশ্বের ইতিহাসে শেখ হাসিনার মানবতা এবং গরীব-দুঃখী মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠায় অনন্য দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে।
এমপি জাফর আলম আজ সকালে চকরিয়ার গৃহহীন ৮০ পরিবারের মাঝে জায়গাসহ বাড়ির দলির হস্তান্তর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।
চকরিয়া উপজেলা পরিষদ মিলয়নায়তনে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সৈয়দ শামসুল তাবরীজের সভাপতিত্বে বাড়ির দলিল হস্তান্তর অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফজলুল করিম সাঈদী, ভাইস চেয়ারম্যান মকছুদুল হক ছুট্টু, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. তানভীর হোসেন, পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহেদুল ইসলাম লিটু প্রমূখ।
চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ শামসুল তাবরীজ বলেন, ‘মুজিববর্ষ উপলক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঐকান্তিক ইচ্ছায় সারাদেশে একযোগে প্রথমদফায় ৭০ হাজার গৃহহীন পরিবারকে বাড়ি হস্তান্তর করা হয়েছে আজ। তারই আলোকে চকরিয়ার ১৮টি ইউনিয়নের ভূমিহীন ১৮০ পরিবারকে দেওয়া হচ্ছে জায়গাসহ নতুন বাড়ি। আজ শনিবার একসঙ্গে ৮০ পরিবারকে বাড়িসহ জায়গার বন্দোবস্ত দলিল হস্তান্তর করা হয়েছে। বাকী পরিবারগুলোকেও পর্যায়ক্রমে হস্তান্তর করা হবে জায়গাসহ নতুন বাড়ি, বন্দোবস্ত দলিল।
পেকুয়া উপজেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, পেকুয়া উপজেলার সাতটি ইউনিয়নের ৪৫ ভূমিহীন পরিবারকে দেওয়া হবে জায়গাসহ নতুন বাড়ি। প্রথমদফায় বাড়িসহ জায়গার বন্দোবস্ত দলিল হস্তান্তর করা হয়েছে ভূমিহীন ৯টি পরিবারকে। পেকুয়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাড়ির দলিল হস্তান্তর অনুষ্ঠানে। এতে সভাপতিত্ব করেন পেকুয়ার ইউএনও মো. মোতাচ্ছেম বিল্যাহ।
এমপি জাফর আলম বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর চাওয়া হচ্ছে বাংলাদেশের একটি মানুষও গৃহহীন থাকবে না। তিনি জনগণের মুখে হাসি ফোঁটাতে চান। বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর ক্ষমতায়নের জন্য ক্ষুধা, দারিদ্র্য, অসুস্থতা, লিঙ্গ বৈষম্য, অবিচার আর অজ্ঞতার শেকল থেকে তাদের মুক্ত করতে নিরলসভাবে কাজ করছেন। তাই মুজিববর্ষ উপলক্ষে আশ্রয়ণ প্রকল্প-২ এর আওতায় সারাদেশে প্রায় ৯ লাখ ভূমিহীন পরিবারকে পুনর্বাসন করা হবে জায়গাসহ নতুন বাড়ি তৈরি করে দেওয়ার মাধ্যমে। আগামী মাসে আরও এক লাখ ভূমিহীন পরিবার নতুন বাড়ি পাবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •