সংবাদদাতা:
কক্সবাজার জেলার অন্যতম সামাজিক ও পরিবেশবাদী সংগঠন কক্সিয়ান এক্সপ্রেসের খোলা চিঠি প্রদানের ১২ ঘন্টার মধ্যেই মসজিদ নির্মাণের পদক্ষেপ হাতে নিয়েছেন চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার। সামাজিক যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম ফেসবুকে মসজিদ নির্মাণের খোলা চিঠি ব্যাপকভাবে প্রচার হলে তা চকরিয়া উপজেলা ইউএনওর দৃষ্টিগোচর হয়। চকরিয়া ইউএনও সময়ক্ষেপণ না করে মসজিদ নির্মাণের কাজ হাতে নেন এবং একই সময়ে ‘উপজেলা প্রশাসন চকরিয়া’র অফিসিয়াল ফেসবুক গ্রুপে তা জানিয়ে দেন। এমন তাৎক্ষনিক পদক্ষেপের জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন সংগঠনটির সভাপতি ইরফানুল হাসান ও সাধারণ মুসল্লিগণ।

উল্লেখ্য সম্প্রতি ‘কক্সিয়ান এক্সপ্রেস’ সাংগঠনিক অগ্রগতির লখ্যে চকরিয়ার মানিকপুর নিভৃতে নিসর্গ পার্কে আনন্দ ভ্রমণের আয়োজন করেন। ভ্রমনে এই সংগঠনটি কর্মসূচির অংশ হিসেবে নিভৃতে নিসর্গ জুড়ে ময়লা আবর্জনা পরিষ্কার, পর্যটকদের সচেতনামূলক লিফলেট বিতরণ ও স্থানীয় চেয়ারম্যানের হাতে সচেতনতামূলক ফেস্টুন এবং ময়লা-আবর্জনা ফেলার ঝুড়ি প্রধান করেন।

এসময় পার্কে কোন মসজিদ না থাকায় আগত পর্যটকদের অনেককেই পার্কের বিভিন্ন স্থানে দলবদ্ধ ভাবে বা যে যার মতো নামাজ আদায় করতে দেখা যায়। এমন দৃশ্য দৃষ্টিগোচর হলে কক্সিয়ান এক্সপ্রেসের একটি টিম দূরদূরান্ত থেকে আগত মুসল্লিদের নামাজের জন্য পার্কে স্থায়ীভাবে মসজিদ নির্মানে স্থানীয় চেয়ারম্যানকে জোর দাবী জানান। খবর নিয়ে জানা যায়, পুরো পার্কও পার্কের আশেপাশের প্রায় দুই কিলোমিটারে কোন মসজিদ নেয়।

ভ্রমণ শেষে ‘কক্সিয়ান এক্সপ্রেস’ চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর নিভৃতে নিসর্গে আগত পর্যটকদের জন্য স্থায়ীভাবে মসজিদ নির্মানে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে খোলা চিঠি প্রদান করেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •