মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

কক্সবাজার জেলার নবম থানা হিসাবে ‘ঈদগাঁও থানা’ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান এমপি বুধবার ২০জানুয়ারী সকাল সাড়ে ১১টায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থেকে উদ্বোধন করবেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর একান্ত সচিব দেওয়ান মাহবুবুর রহমান প্রেরিত সংশোধিত সফরসূচীতে এ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের কথা উল্লেখ রয়েছে।

ঈদগাঁও থানা হবে কক্সবাজার জেলার নবম পুলিশী থানা। কক্সবাজার সদর উপজেলার ভৌগোলিকভাবে ৫ টি ইউনিয়ন যথাক্রমে জালালাবাদ, ইসলামাবাদ, ঈদগাঁও, ইসলামপুর ও পোকখালী ইউনিয়ন নিয়ে ঈদগাঁও থানা স্থাপিত হচ্ছে। এজন্য প্রশাসনিকভাবে ওসি সহ একটি পূর্ণাঙ্গ থানার অন্যান্য সকল কর্মকর্তা ও কর্মচারীর পদ পদায়ন করা হয়েছে। ২০১৯ সালের ১৯ অক্টোবর প্রশাসনিক পূণর্বিন্যাস সংক্রান্ত জাতীয় কমিটি (নিকার) এর সভায় নেওয়া সিদ্ধান্ত অনুযায়ী গেজেট প্রকাশ করে ঈদগাঁও থানা গঠন করা হয়। ঈদগাঁও পুলিশি থানা স্থাপনের মাধ্যমে ঈদগাঁও একটি পূর্ণাঙ্গ উপজেলা হিসাবে আত্মপ্রকাশে আরো এক ধাপ এগিয়ে গেলো।

বুধবারের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে কক্সবাজার-৩ আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল, আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদ, পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি মোঃ আনোয়ার হোসেন বিপিএম (বার) পিপিএম (বার), কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মোঃ মামুনুর রশীদ, পুলিশ সুপার মোঃ হাসানুজ্জামান পিপিএম প্রমুখ উপস্থিত থাকবেন।
কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ঈদগাঁও বাস স্টেশনের একটু উত্তরে ইসলামাবাদ ইউনিয়নের তুলাতলী’র বর্তমান তদন্ত কেন্দ্রকে থানায় রূপান্তর করা হবে। নবগঠিত ঈদগাঁও থানা হবে দেশের ৬৫১ তম থানা। আগে কক্সবাজার সদর মডেল থানার অধীনে ছিলো ঈদগাঁও তদন্ত কেন্দ্র। পুরাতন তদন্ত কেন্দ্রকে থানা হিসাবে উদ্বোধনের জন্য বর্ণাঢ্য সাজে সাজানো হচ্ছে। নবগঠিত ঈদগাঁও থানায় রূপান্তরের মাধ্যমে কক্সবাজার জেলায় পুলিশী থানার সংখ্যা হবে মোট ৯টি।

প্রসঙ্গত, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান এমপি আজ মঙ্গলবার ১৯ জানুয়ারী ২ দিনের সফরে কক্সবাজার এসেছেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •