দেলোয়ার হোছাইন (বাপ্পী)

ভাবনার তরী ডুবে যাচ্ছে দিন দিন, মনের মধ্যে গভীরতা বৃদ্ধি পাচ্ছে আতঙ্কের। তাহলে কি সত্যি ভাবনার তরী ডুবে গিয়ে সাগরে হাবুডুবু খেতে হবে?

মানবতার সভ্যতাকে ব্যবহার করে, মানব চামড়া দেহী মানুষ গুলোর খেলা বন্ধ করার উপায় কি মিলবে না?

সভ্যতার কথা বলে নোংরা মন মানসিকতায় সভ্য সমাজকে কলুষিত করে তবে কি আপনার স্লোগান দেন জয় হউক মানবতার?

সভ্য সমাজে সভ্য মানুষের মুখোশ পরে অসভ্য-তামী করাকে কি মানবতা বলে স্বীকৃতি দেওয়ার জোর পায়তাঁরা চলতেছে তাহলে??

একজনের অধিকার কেঁড়ে নিয়ে অন্যকে বল পূর্বক অধিকার দিয়ে দেওয়ার নতুন নিয়ম এটাও কি মানব সেবার নতুন সৃষ্টি?

কি দেখাতে চাচ্ছেন? কি করতে চাচ্ছেন? কিসের এজেন্ডা বাস্তবায়ন করতেছেন? আমাদের নাড়ীর উপরে এভাবে আর কত দিন এসব নাটকীয় লীলা খেলা দেখতে হবে মানবতার নামে?

আপনাদের নাটকীয়তার শেষ না হলে বাস্তবতা যখন কঠিন রূপ ধারণ করবে। তখন পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে চিন্তা করেছেন?

মানুষের আবেগ নিয়ে খেলা করা কেন আপনাদের নিত্যা দিনের ফ্যাশন হয়ে গেছে?

এভাবে চলতে থাকলে ভবিষ্যত কি হবে? মনে রাখবেন ছাঁয়া কে লাথি দেখালে ছাঁয়া ও লাথি দেখায়, যেমনটা প্রকৃতি সব সময় ফেরৎ দেয়, সময় হয়ত খুব কাছে ঘনিয়ে এসেছে। আপনাদের এই অপকর্মের প্রতি জবাব পাওয়ার। সময় থাকতে সাবধান হয়ে যান, যাতে আপনার মানবতা আপনার জন্য কাল হয়ে না দাঁড়ায়।

সঠিক মানবতার সেবা কখনো মানুষ কে ঠকানো নয়, মানবতার দোহাই দিয়ে দিন দিন আপনাদের প্রতি অতিষ্ট হয়ে যাচ্ছে উখিয়া টেকনাফের জনগণ।

আপনারা মানবতার নাম ভাং-গিয়ে উখিয়া টেকনাফের মানুষদের বঞ্চিত করে, প্রতিনিয়ত ব্যবসা করে যাচ্ছেন।

এত সুন্দর মানবতা আমরা তো আগে কখনো দেখিনি? এসব অপ- মানবতার কারণে আজকে উখিয়া টেকনাফের হাজার হাজার ছেলে মেয়ে শিক্ষিত বেকার, আর আপনারা তাদের পিঠের উপর হাল চাষ করে মানবতার ব্যবসা করে যাচ্ছেন।

সময়ের ব্যবহার ভালই করতে চলেছেন, চাকরি এবং ত্রাণ পাচ্ছে রোহিঙ্গারা আর আপনাদের আত্নীয় স্বজনরা। স্থানীয়রা পাচ্ছে ঘ্রাণ আর কত দিন সেই ঘ্রাণে সুভাসিত করে মানবতার বেড়া জালে ঠকাবেন?

সময়ে সঠিক জবাব হয়ত খুব কাছাকাছি চলে এসেছে, আপনাদের এসব কারসাজি এখন উখিয়া টেকনাফের দোলনার বাচ্চাদের কাছেও পরিষ্কার হয়ে গেছে। এভাবে চলতে থাকলে আপনারা আরও বিষাদ-ধর হয়ে যাবেন।

আপনাদের এসব অপ-মানবতা পেয়ে রোহিঙ্গারাও বিষাদ থেকে আরও বিষাদ-ধর হয়ে উঠবে।

সুতরাং এখনি সময় আপনাদের কে সঠিক জবাব দেওয়ার।
আপনাদের মানবতার নীতি অব-মূল্যায়নের কারণে দিন দিন বেকারত্বের হার বেড়েই চলতেছে এবং যুব ছাত্র সমাজ মানসিক চাপ ভোগ করতে না পেরে, প্রতিনিয়ত জড়িয়ে পড়তেছে মাদক ছিনতাই ধর্ষন সহ নানা অপর্কমে ।

এসবে পিছনে আপনাদের এই অপ-মানবতা কিন্তু সর্ব প্রথম দায়ী।
আপনাদের সঠিক পদচারণা হলে বন্ধ হবে
রোহিঙ্গাদের অপকর্ম আমরা পাবো স্বস্তি।

সর্বোপরি,
মানবতা হউক মানবধর্মী
মানব হউক মানবতা প্রেমি
মানব প্রেমি হউক কল্যাণ কামী
কল্যাণ হউক করণীয় কামী
কামনা হউক সঠিক কামী
সঠিক পথচলা সফল কামী
বাস্তবতা হউক সঠিক মানবতা কামনা কামী।

 

 

লেখকঃ বি,এ এম,এ (এল এল,বি অধ্যয়নরত)

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •