এম আবু হেনা সাগর, ঈদগাঁও:
কক্সবাজার সদরের ঈদগাঁও সাংগঠনিক উপজেলা ছাত্রলীগের আগামীর কমিটিতে ঢুকতে দৌড়ঝাঁপ শুরু হয়ে গেছে। সম্ভাব্য প্রার্থীদের জোর লবিং-তৎপরতা বেশ লক্ষ্যণীয়। চলছে ভাব বিনিময়। নেতাদের মন পেতে নানামুখি কাজ করে দেখাচ্ছে আগ্রহীরা।

বিশেষ করে, ভাইটাল পোস্ট সভাপতি ও সম্পাদক পদে আসতে ডজনাধিক নেতার নাম মাঠে শোনা যাচ্ছে। বাকিটা দেখার অপেক্ষা।

আগামি ফ্রেরুয়ারীতে ঈদগাঁও সাংগঠনিক উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষনা করার আভাস দিয়েছে দলের একটি সুত্র।

সেই টার্গেটে কাজ করছে পদপ্রার্থীরা।

সভাপতি পদ প্রত্যাশায় কাজ করছেন- জেলা ছাত্রলীগের গত কমিটির উপ-সাংস্কৃতিক সম্পাদক আনোয়ারুল আজম খোকন, ঈদগাঁও ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ইরফানুল করিম, ঈদগাঁও ফরিদ আহমদ কলেজ ছাত্রলীগের আহবায়ক আবদুর রহমান নাহিদ, ঈদগাঁও ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি রাহুল পাল নিনিত। সভাপতি প্রার্থী হিসেবে রয়েছে আরো কয়েকজন।

সাধারণ সম্পাদক পদে ইসলামপুর ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ছৈয়দ মোহাম্মদ তামিম, ঈদগাঁও সাংগঠনিক উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী আবদুল্লাহ, ঈদগাঁও ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক সোহেল মাহমুদ রুহান, ঈদগাঁও কলেজ ছাত্রলীগের যুগ্মআহবায়ক সাদ্দাম হোসেনের নাম আপাততঃ মাঠে শোনা যাচ্ছে।

তারা নিজস্ব আঙ্গীকে পোস্টার, ব্যানার করেছে। বিভিন্ন সভা, সমাবেশে অংশ গ্রহণ করছে। পাশাপাশি জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি, সম্পাদকের নজর কাড়তে নিজস্ব ফেসবুক আইডিতে প্রচারণা চালাচ্ছে।

এ ক্ষেত্রে তাদের পড়ালেখা, পারিবারিক, সামাজিক অবস্থানকে বেশি মূল্যায়ন করা হবে বলে জেলা কমিটির নেতারা জানিয়েছেন।

জেলা ছাত্র লীগের সাধারণ সম্পাদক মারুফ আদনান জানান, শুধু প্রচারণা চালালে পদপদবী মিলে না। তার জন্য দরকার গ্রহণযোগ্যতা। সবার আগে ছাত্রত্ব প্রাধান্য। তারপর পারিবারিক, সামাজিক অবস্থান। সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব পাবে তৃণমূল থেকে ওঠে আসা ছাত্রলীগ নেতারা।

তিনি জানান, আগামির কমিটিগুলো হবে মডেল কমিটি।

কোন বিতর্কিত লোককে ছাত্রলীগে স্থান দেয়া হবেনা বলেও সাফ জানিয়ে দিয়েছেন মারুফ আদনান।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •