দৈনিক কালেরকণ্ঠসহ বিভিন্ন অনলাইনে প্রকাশিত পাওয়ার আলীর আছে ৫০০ কোটি টাকা শীর্ষক সংবাদটি আমি নি¤œস্বাক্ষরকারীর দৃষ্টি গোচর হয়েছে। সংবাদটি সম্পূর্ণ বানোয়াট ভিত্তিহীন এবং উদ্দেশ্যে প্রনোদিত এবং সংবাদের সাথে বাস্তবতার কোন সামঞ্জস্য নেই। আমি উক্ত সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং সাথে সাথে আমাকে জড়িয়ে যে মানহানীকর সংবাদ পরিবেশন করেছে তার সুষ্ঠু তদন্ত পূর্বক প্রকৃত দোষী হলে তার দায় আমি গ্রহণ করব এবং নির্দোষ হলে তার বিরুদ্ধে সম্মানহীনতার অভিযোগসহ আইনগত ব্যবস্থা নেব ইনশা আল্লাহ। আমি সর্বসময় স্বাধীনতার স্বপক্ষের শক্তির পক্ষে কাজ করি। জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে লালন করি। দেশের সফল রাষ্ট্রনায়ক মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নকে সমর্থন করি বিধায় যুদ্ধাপরাধী গোলাম আজমের পুত্রের বিয়াই এবং কক্সবাজার চেম্বার অব কমার্সের দায়িত্বে থাকাকালীন বঙ্গ দূর্নীতির অভিযুক্ত মোহাম্মদ আলীর পরিবার আমার বিরুদ্ধে দীর্ঘ দিন ধরে লাগাতার ষড়যন্ত্রে নেমেছেন। কালেরকণ্ঠ প্রকাশিত সংবাদ তারই অংশ। তার পরিবার সরকার বিরোধী চিহ্নিত পরিবার হিসেবে পরিচিত। বিগ সময়ে আওয়ামী লীগ সরকার বিরোধী অর্থাৎ স্বাধীনতার বিপক্ষের শক্তি ক্ষমতায় থাকাকালীন সময়ে ক্ষমতার অপব্যবহার করে চকরিয়ার বাসিন্দা হাসিব উদ্দিন গংদের কাছ থেকে তাদের শহরের হসপিটাল সড়কে ২৬ শতক জমি দখল করে বসতভিটা করে আসছেন এবং শেভরণ মার্কেটটি নির্মাণ করেছেন। আমি হাসিব গংদের সহযোগীতা করেছি বলেই আমার বিরুদ্ধে উঠেপড়ে লেগেছে স্বাধীনতা বিরোধী মোঃ আলীর পরিবার। দীর্ঘ ২ যুগ কক্সবাজার চেম্বারকে লুটেপুটে খাওয়া মোহাম্মদ আলী ও তার পুত্র সাবেক পৌর বিএনরি সেক্রেটারী রাশেদ মোহাম্মদ আলীর উক্ত বিভ্রান্তিকর ও ষড়যন্ত্রমূলক সংবাদ ছাপিয়েছেন।

আমি বাংলাদেশ সরকারের আয়কর প্রদানকারী একজন সৎ ও পরিচ্ছন্ন ব্যবসায়ী। কক্সবাজারের প্রত্যন্ত অঞ্চলে আমি সাধারণ মানুষের হৃদয়ে বিভিন্ন দুঃসময়ে সহায়তার হাত বাড়িয়ে আসছি। সংবাদে যে মিথ্যার আশ্রয় নেয়া হয়েছে। তার প্রতিটি ব্যবসার সরকারি রাজস্ব প্রদানের তথ্য উপস্থাপন করছি। আমার আলী এন্টারপ্রাইজ নিজ গ্রামে ডেইরী এ্যান্ড পোল্ট্রি ফার্ম ও মেসার্স এস.এম.এ. ব্রিক ফিল্ডের নিয়মিত আয়কর দিয়ে সুষ্ঠু ভাবে ব্যবসা পরিচালনা করে আসছি। আমার টি আই এন নম্বর-৩৩৫৪৬৫৯৫২৬৩ সার্কেল-৮৪ কর অঞ্চল চট্টগ্রাম প্রতিষ্ঠানের বিপরীতে নিয়মিত কর প্রদান করে আসছি। ২০২০-২০২১ অর্থ বরেও ৪ লাখ ৩৩ হাজার ৯৭১ টাকা রাজস্ব প্রদান করেছি। সংবাদে উল্লেখিত কক্সবাজারে ২টি বাড়ির হোল্ডিং টেক্সসহ সমস্ত সরকারি কর পরিশোধ করে সুনামের সাথে ব্যবসা পরিচালনা করে আসছি। আমার ব্যবসায়িক সুনাম ও সর্বস্থরের মানুষের কাছে আমার গ্রহণযোগ্যতা বৃদ্ধি পাওয়ায় ঈষান্বিত হয়ে আমাকে তাদের নিজেদের স্বার্থ হাসিল করতে না পেরে সাংবাদিক ভাইদের মিথ্যা তথ্য নিয়ে মানহানিকর সংবাদ ছাপিয়েছে। আমি কক্সবাজারের সর্বস্তরের জনসাধারণের কাছে এবং সরকারি সংশ্লিষ্ট সংস্থা ও দপ্তরের কাছে ওপেন চ্যালেঞ্জ করছি আমার সমস্ত সম্পদ সরকারি করের অন্তর্ভূক্ত। কক্সবাজার ছঅড়া আমার একটি ইট পযৃন্ত নেই। যে চক্রটি আমার বিরুদ্ধে দীর্ঘ দিন ষড়যন্ত্র করে আসছে তারাই আমাকে মেরে ফেলার ষড়যন্ত্র চালিয়ে সফল হতে না পেরে মিথ্যা ও ভূয়া তথ্য, সন্ত্রাস চালাচ্ছে। উক্ত চক্রটিকে শীঘ্রই আমি আইনের কাঠগড়ায় এনে মুখোশ উম্মুচন করে জেলাবাসীকে দেখিয়ে দেব ইনশা আল্লাহ।

দেশের একটি শীর্ষ পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশে আরো দায়িত্বশীল এবং সাংবাদিকতার নীতিমালা অনুসরণ করে প্রকৃত সত্য যাছাই করে সংবাদ পরিবেশন করার দাবি জানাচ্ছি এবং উক্ত মিথ্যার ফুলঝুড়ি নিয়ে অসত্য সংবাদের বিষয়ে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য সবাইকে অনুরোধ জানাচ্ছি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •