এম.জিয়াবুল হক, চকরিয়া:

চকরিয়ার পূর্ব বড় ভেওলার চরপাড়ায় প্রতিপক্ষের হামলায় নারীসহ ৮জন আহত হয়েছে। শুক্রবার (৮জানুয়ারি) বিকেল তিনটার দিকে এ ঘটনা ঘটে। হামলায় আহতদের মধ্যে ছয়জন নারী ও একজন পুরুষ রয়েছে। আহতদের মধ্যে তিনজনকে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

আহতরা হলেন, পূর্ব বড় ভেওলার চরপাড়ার রুহুল কাদেরে স্ত্রী পারভিন আক্তার (৩৫), এজেহার হোসেনের স্ত্রী সেতারা বেগম (৫০), আমির হোসেনের স্ত্রী কুমছুমা বেগম (৪৫), তারেকুল ইসলামের স্ত্রী জেসমিন আক্তার (৩২), নুরুল আমিনের স্ত্রী সেলিনা আক্তার (৩৮), এজেহার হোসেনের কন্যা ফাতেমা বেগম (১৮) ও হাকিম মিয়ার পুত্র আমির হোসেন।

আক্রান্ত পরিবার ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, পূর্ব বড় ভেওলা মৌজার ওই জায়গা নিয়ে আদালতে মামলা রয়েছে। তুচ্ছ বিষয়কে কেন্দ্র করে এমদাদ মিয়া গংয়ের পক্ষে হোসেন আলীর নেতৃত্বে তার ছেলে সাদেক মিয়া, কামাল হোসেন, আহমদ হোসেন ও দেলোয়ার ভাড়াটে দুর্বৃত্তরা দা, কিরিচ এবং লাঠিসোটা নিয়ে হামলা চালায়। এতে নারীসহ ৭জন আহত হন। ঘটনাটির পর থেকে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।

হামলায় আহত আমির হোসেন বলেন, ‘পূর্ব বড় ভেওলা মৌজার পরপাড়ায় আমাদের ১৫ শতক জমি আছে। সেই জমির বিরোধ নিয়ে এমদাদ মিয়া গংয়ের বিরুদ্ধে চকরিয়ার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত মামলা দায়ের করা হয়। সে মামলা আদালতে এখনো বিচারাধীন। কিন্তু মামলা নিষ্পত্তি না হওয়ার আগেই বিবাদীপক্ষের এমদাদ গংয়ের পক্ষে হোসেন আলীসহ তার লোকজন নানাভাবে প্রভাব খাটিয়ে হয়রানি করছে। ৮জানুয়ারি হামলায় আমার পরিবারের ছয় নারী ও একজন পুরুষ আহত হয়েছে। ভয়-ভীতি দেখিয়ে দলবল নিয়ে আবারও হামলার হুমকি-ধমকি দিচ্ছে। আমরা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ’

চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাকের মোহাম্মদ যুবায়ের বলেন, ‘এ বিষয়ে ভোক্তভোগী পরিবারের পক্ষে লিখিত অভিযোগ দিলে তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ’

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •