কক্সবাজারের বিভিন্ন পত্রিকা ও অনলাইন নিউজে প্রকাশিত তাজমহল মেম্বারের হামলায় মাদ্রাসা ভাংচুর, এলাকায় বিক্ষোভ শীর্ষক সংবাদটি আমার দৃষ্টি গোচর হয়েছে। সংবাদটি অনেকাংশে মিথ্যা, বানোয়াট এবং উদ্দেশ্যপ্রনোদিত। আমি এ ধরনের কোন হামলায় জড়িত নয়। প্রকৃত ঘটনা হলো সেদিন রাতে আমি এলাকার আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় নিয়মিত রাতে টহলের অংশ হিসাবে চুরি ছিনতাই রোধে পাহারা শেষে উক্ত মাদ্রাসার পুকুরে নিজেকে পরিস্কার পরিচ্ছন্ন হওয়ার জন্য যাই। সেখানে সাবান না থাকায় মাদ্রাসায় সাবানের জন্য গেলে সামান্য ভুল বুঝাবুঝি হয়। এতে কোন ধরনের হামলার ঘটনা হয়নি। অথচ এটাকে পুরনো রাজনৈতিক শত্রুরা ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করে তিলকে তাল বানায়। আমি দীর্ঘ ২০ বছর যাবৎ পিএমখালীর তোতকখালীর জনগনের আস্থা অর্জন করে মেম্বার নির্বাচিত হয়ে সেবা দিয়ে যাচ্ছি। আমার বাবা মরহুম কলিম উল্লাহ সিকদার একজন মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন। আমি সহ পুরো পরিবার আওয়ামী রাজনীতির সাথে জড়িত থেকে বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামে সক্রিয় অংশ গ্রহন করে আসছি। আমার বিরুদ্ধে প্রতি ইউনিয়ন পরিষদের ভোট এলে ষড়যন্ত্র শুরু হয়ে। পুর্ব শত্রুতার জের ধরে ভিন্নভাবে আমাকে হেয় করে সামাজিক সুনাম অর্জন নষ্ট করার পায়তারা চালিয়ে আসে উক্ত কুচক্রী মহল। উক্ত ঘটনা তারই অংশমাত্র। আমি জনগণের আস্থা ধরে রেখেছি এবং আমার বিরুদ্ধে চলমান ষড়যন্ত্র আমার ভোটাররা রুখে দেবে। আমি উক্ত হামলার ঘটনায় আমাকে জড়িয়ে আমার বিরুদ্ধে করা সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং কাউকে বিভ্রান্ত না হওয়ার অনুরোধ করছি।

প্রতিবাদকারী
তাজউদ্দিন সিকদার তাজমহল
ইউপি সদস্য, ৩ নং ওয়ার্ড, পিএমখালী ইউনিয়ন পরিষদ, কক্সবাজার সদর।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •