সংবাদ বিজ্ঞপ্তি:
এস এস সি ১৯৭১ ব্যাচের পরীক্ষার্থীদের সংগঠন সতীর্থ-৭১-এর সভায় মিলনমেলা তথা সম্মিলন-২০২১ আগামী মার্চ মাসে আয়োজনের জন্য সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। ২ জানুয়ারি ২০২১ শনিবার সকালে শহরের এন্ডারসন রোডস্থ কক্সবাজার সাহিত্য একাডেমীর অস্থায়ী অফিসে অনুষ্ঠিত সভায় এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

কোস্ট ট্রাস্ট্রের সহকারী পরিচালক অধ্যাপক মকবুল আহমদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় জেলার প্রতিটি উপজেলার এস এস সি ১৯৭১ ব্যাচের পরীক্ষার্থী বন্ধুদেরকে নিয়ে বৃহত্তর পরিসরে এই মিলন মেলা তথা সম্মিলন আয়োজন করার পুনঃসিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এছাড়াও জেলার বাইরের কোনো সতীর্থ সম্মিলনে যোগদান করতে চাইলে তাদেরকেও স্বাগত জানানো হবে। এ জন্য জেলার প্রতিটি উপজেলার বন্ধুদের সাথে যোগাযোগ করে তাদেরকে এব্যাপারে অবহিত করা এবং তাদেরকে সতীর্থ-৭১-এর সদস্য করার জন্যও সিদ্ধান্ত হয়। এ লক্ষে ইতোপূর্বে গঠিত আহবায়ক কমিটিকে আরো কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য অনুরোধ করা হয় এবং একই সাথে প্রয়োজনে আহ্বায়ক কমিটিতে আরো সতীর্থকে সদস্য হিসেবে কোঅপ্ট করার সিদ্ধান্ত হয়। চট্টগ্রাম শহরের সতীর্থ কক্সবাজার বনবিভাগের প্রাক্তন বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবুল মনসুরকে চট্টগ্রাম অঞ্চল থেকে সম্মিলনে অংশগ্রহণে আগ্রহী সতীর্থদের সাথে যোগাযোগ করে রেজিষ্ট্রেশন করার জন্য দায়িত্ব প্রদান করা হয়।

এছাড়াও উপজেলাওয়ারী সতীর্থদের সাথে যোগাযোগ করে সমন্বয় করার জন্য উপজেলাওয়ারী দায়িত্বপ্রাপ্তরা হচ্ছেন যথাক্রমে কুতুবদিয়া উপজেলায় শাকের উল্লাহ (প্রাক্তন চেয়ারম্যান, বড়ঘোপ ইউনিয়ন পরিষদ), মহেশখালী উপজেলায় অধ্যাপক মকবুল আহমদ (সহকারী পরিচালক, কোস্ট ট্রাস্ট, কক্সবাজার) ও কক্সবাজার সাহিত্য একাডেমীর সাধারণ সম্পাদক কবি রুহুল কাদের বাবুল (প্রাক্তন চেয়ারম্যান, কালারমারছড়া ইউনিয়ন পরিষদ), রামু উপজেলায় ফজলুল হক চৌধুরী (অবসরপ্রাপ্ত উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা), মোহাম্মদ জকরিয়া (গর্জনিয়া), ছাবের আহমদ (দক্ষিণ মিঠাছড়ি) ও মুক্তিযোদ্ধা মোজাফ্ফর আহমদ, কক্সবাজার সদর উপজেলায় জাফর আলম (প্রাক্তন চেয়ারম্যান, ইসলামাবাদ ইউনিয়ন পরিষদ), নূরুল হুদা (কক্সবাজার সরকারি কলেজের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান সহকারি), গোলাম কাদের (ভারুয়াখালী, কক্সবাজার সদর) ও আবুল কালাম ফরাজী (কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অবসরপ্রাপ্ত পরিচালক), চকরিয়া-পেকুয়া উপজেলায় মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর চৌধুরী (রাজাখালী হাইস্কুলের অবসরপ্রাপ্ত সিনিয়র শিক্ষক) ও উখিয়া উপজেলায় মোক্তার আহমদ (প্রধান শিক্ষক, মাদারবুনিয়া-চেপটখালী উপকুলীয় হাইস্কুল)। সভায় সম্মিলনকে সফল ও স্বার্থক করার জন্য একটি স্মরণিকা প্রকাশের সিদ্ধান্ত হয়। স্মরণিকার জন্য সতীর্থগণকে লেখা প্রদানের জন্য অনুরোধ করা হয়েছে। এছাড়াও সকল সম্মানিত সতীর্থগণকে আহবায়ক কমিটির সাথে যোগাযোগ করে রেজিষ্ট্রেশন করার জন্যও অনুরোধ করা হয়েছে।

রামু খিজারী হাইস্কুলের সতীর্থ অবসরপ্রাপ্ত উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা ফজলুল হক চৌধুরী ফোরামের নীতিমালা উপস্থাপন করেন। উক্ত নীতিমালার উপর উপস্থিত সকলে আলোচনা ও পর্যালোচনা করেন। আগামী সভায় প্রত্যেক সতীর্থকে নীতিমালার কপি সরবরাহ করার সিদ্ধান্ত হয় এবং সতীর্থগণ উক্ত নীতিমালার উপর প্রয়োজনে সংযোজন, বিয়োজন করে পরবর্তী সভায় পেশ করার জন্যও সিদ্ধান্ত হয়।

সভায় আরো সিদ্ধান্ত হয়, সতীর্থ-৭১-এর সম্মিলনকে সফল করার জন্য রেজিষ্ট্রেশন ফিস হিসেবে এক হাজার টাকা ধার্য করা হয়। তবে সতীর্থের স্ত্রী ছাড়া পরিবারের অন্য সদস্যদের জন্য জনপ্রতি ২০০ টাকা করে অতিরিক্ত প্রদান করতে হবে।

সিদ্ধান্ত মতে সতীর্থ-৭১ এর সদস্য কক্সবাজার সাহিত্য একাডেমীর সাধারণ সম্পাদক কবি রুহুল কাদের বাবুল রেজিষ্ট্রেশন ফরমের খসড়া সভায় উপস্থাপন করেন। সভায় আলোচনা ও পর্যালোচনা করে উক্ত ফরম অনুমোদন করা হয়। আগামী সভায় উপস্থিত সতীর্থদের রেজিষ্ট্রেশন শুরু করা হবে।

সভায় উপস্থিত ছিলেন মুহম্মদ নূরুল ইসলাম, অধ্যাপক মকবুল আহমদ, ছাবের আহমদ (মিঠাছড়ি, রামু), কবি রুহুল কাদের বাবুল, আবুল কালাম ফরাজী, সুনীল কুমার শর্মা (রামু), মাস্টার সামশুদ্দিন আহমদ (ভারুয়াখালী, কক্সবাজার সদর), নুরুল হুদা (প্রাক্তন প্রধান সহকারী, কক্সবাজার সরকারি কলেজ), মোক্তার আহমদ (প্রধান শিক্ষক, মাদারবুনিয়া-চেটপখালী উপকূলীয় হাইস্কুল, উখিয়া), এডভোকেট মনিরুজ্জামান (দক্ষিণ মিঠাছড়ি, রামু), ফজলুল হক চৌধুরী (অবসরপ্রাপ্ত উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা) ও মনজুরুল আলম চৌধুরী (মহেশখালী) প্রমুখ।

সতীর্থ-৭১ ফোরামের পরবর্তী সভা আগামী ৯ জানুয়ারি, ২০২১ শনিবার শহরের লালদিঘী পাড়স্থ হোটেল প্যানোয়ার রেস্টুরেন্টে এন্ডারসন রোডের কক্সবাজার সাহিত্য একাডেমীর অস্থায়ী কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হবে। সভায় ৭১ ব্যাচের বন্ধুদেরকে উপস্থিত থাকার জন্য বিনীতভাবে অনুরোধ করা হয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •