সিবিএন ডেস্ক:
এইচএসির পরীক্ষার অটো পাসের বিষয়ে আইন সংশোধনের উদ্যোগ নিয়ছে সরকার। এ সংক্রান্ত সুনির্দিষ্ট বিধি না থাকায় আইনি জটিলতা এড়াতে শিক্ষা বোর্ড আইন সংশোধন করে একটি অধ্যাদেশ জারি করবে।

শিক্ষা বোর্ড আইনে বলা আছে, পরীক্ষা নিয়ে বোর্ড ফল প্রকাশ করবে। কিন্তু করোনার কারণে এবার পরীক্ষা হচ্ছে না। তাই ফল প্রকাশের পর আইনি জটিলতার মুখে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

তবে ফল প্রকাশের জন্য এখনও সুনির্দিষ্ট গাইডলাইন হাতে পায়নি শিক্ষা বোর্ডগুলো। ফলের নম্বর সংরক্ষণের টেবুলেশন শিটও তৈরি হয়নি। সব মিলিয়ে এইচএসসির ফল কবে প্রকাশ করা হবে তা নিয়ে শঙ্কার সৃষ্টি হয়েছে। যদিও কর্মকর্তাদের দাবি শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির নির্দেশনা অনুযায়ী ডিসেম্বরেই ফল প্রকাশের লক্ষ্য নিয়ে কাজ চলছে।

ঢাকা শিক্ষা বোর্ড থেকে জানা গেছে, ফল প্রকাশের নীতিমালার খসড়া বোর্ড থেকে মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছিল। কিন্ত তা অনুমোদিত হয়ে এখনও বোর্ডে পৌঁছায়নি। তবে শিগগিরই তা বোর্ডগুলোতে পৌঁছানোর কথা আছে। অপরদিকে শিক্ষা বোর্ডগুলো এখনো টেবুলেশন শিটের ফরমেট হাতে পায়নি। অন্যান্য বোর্ডগুলোর কর্মকর্তারা ঢাকা বোর্ডের কর্মকর্তাদের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাচ্ছেন। আশা করা হচ্ছে, টেবুলেশনের ফরমেটও খুব শিগগিরই বোর্ডগুলো হাতে পাবে।

এ বিষয়ে ঢাকা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক এস এম আমিরুল ইসলাম বলেন, ‘শিক্ষামন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী ডিসেম্বরের মধ্যে এইচএসসির ফল ঘোষণা করার চেষ্টা চলছে। আমরা সর্বাত্মক চেষ্টা করছি ডিসেম্বরেই ফল দেওয়ার।’

গত ৭ অক্টোবর শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি সংবাদ সম্মেলনে জানান, করোনা মহামারির মধ্যে পঞ্চম ও অষ্টমের সমাপনীর মতো এবার এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়া হবে না। অষ্টমের সমাপনী ও এসএসসির ফলাফলের গড় করে এবারের এইচএসসির ফল নির্ধারণ করা হবে। ডিসেম্বর মাসের মধ্যেই এই ফল ঘোষণা করা হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •