মোস্তফা কামালঃ
বান্দরবানের লামা উপজেলার ফাঁসিয়াখালীতে একটি বন্য হাতির পাল সবজি ক্ষেতে হানা দিয়ে দুই কৃষকের বিপুল পরিমাণ ফসল খেয়ে ও পায়ে মাড়িয়ে ব্যাপক বিনষ্ট করেছে। এঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত ওই কৃষকরা এখন অসহায় হয়ে পড়েছে।
বৃহস্পতিবার (২৪ ডিসেম্বর) দিবাগত গভীর রাতে ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ড পশ্চিম হায়দারনাশী নামক এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।
কৃষকের সবজি ক্ষেতে বন্য হাতির তান্ডবের খবর পেয়ে পরদিন শুক্রবার সকালে স্থানীয় উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোঃ মিরাজুল অামিন মিরাজ ও মোঃ বেলাল উদ্দিন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক ওই এলাকার বাসিন্দা মৃত নুরুল অামিনের পুত্র ছাবের আহমদ ও আবুবকরের পুত্র মোঃ বাদশাহ মিয়া জানান, তারা
সবজি মৌসুমের শুরুতে ভালো ফসলের আশায় একটি বেসরকারি ব্যাংক থেকে লোন নিয়ে ও অন্যের কাছ থেকে জমি বর্গা নিয়ে বাড়ির অদূরে ছাবের আহমদ এক একর জমিতে ও বাদশাহ মিয়া ৪০ শতক জমিতে বিভিন্ন প্রকার শীতকালীন সবজি চাষ ও কলা চাষ করে পাহারা দিয়ে আসছিলেন। নানা প্রতিকুলতায় পরিচর্চার ফলে ক্ষেতও সবুজের সমাহার হয়ে উঠেছিল। কিন্তু বিধিবাম ! ঘটনার দিন রাত ২ টার দিকে ৮ -১০টির বুনো হাতির একটি পাল তাদের ক্ষেতে হানা দিয়ে তান্ডব চালায়। এসময় ক্ষেত রক্ষায় তাদের শো চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়েগিয়ে এসে হাতি তাড়ালেও ততক্ষণে হাতির পাল পুরো কলা বাগান ও সবজি ক্ষেত খেয়ে ও পায়ে মাড়িয়ে বিনষ্ট করে ফেলে।
এতে তারা দুইজনের প্রায় লক্ষ্য টাকার বেশি ক্ষতিসাধন হয় বলে দাবী করা হচ্ছে। এ কারণে ফসল নিয়ে তাদের দেখা স্বপ্নও ভেঙ্গে তছনছ হয়ে যায়।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ জাকের হোসেন মজুমদার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে তিনি বলেন, ইউনিয়নের হায়দারনাশী এলাকায় দুই কৃষকের সবজি ক্ষেতে বন্য হাতির পাল তান্ডব চালিয়ে ফসলের ক্ষতি করেছে বলে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক ও স্থানীয়রা আমাকে ফোনে জানিয়েছেন। তবে ওই কৃষকদের যদি বেশি ক্ষতিসাধন হয়ে থাকে, তাদেরকে সরকারি ভাবে আর্থিক সহায়তা পায়মতো সহযোগিতা করা হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •