cbn  

এম.জিয়াবুল হক,চকরিয়া :

চকরিয়া উপজেলার কোনাখালীতে রাতের আঁধারে একটি পদ্ধতির মৎস্য প্রকল্পে বিষ প্রয়োগের ঘটনা ঘটেছে। এতে দুইটি ঘেরে মরে গেছে প্রায় দুই লাখ টাকার মাছ। বুধবার দিবাগত রাতে ইউনিয়নের মধ্যম কোনাখালী খাতুরবাপের পাড়াস্থ লতাবনিয়া এলাকার ফরিদুল আলমের মৎস্য প্রকল্পে ঘটেছে বিষ প্রয়োগের এই ঘটনা।

ভুক্তভোগী মৎস্য প্রকল্প মালিক স্থানীয় হাজি সৈয়দ নুর সিকদারের ছেলে হাজি ফরিদুল আলম বলেন, বাড়ির পাশে জমিতে দুইটি পদ্ধতির পুকুরে ৪-৫ মাস আগে বিপুল টাকা লগ্নি করে চিংড়িসহ বিভিন্ন জাতের মাছের পোনা অবমুক্ত করেছিলেন। ইতোমধ্যে দুইটি ঘেরে মাছগুলো অনেক বড় হয়েছে।

প্রতিদিন সকাল বিকাল তিনি মৎস্যঘেরে মাছের খাদ্যসহ বিভিন্ন ধরণের ওষুধ দিয়ে আসছেন। তাতে মোট ৪ থেকে ৫ লাখ টাকার পুঁিজ বিনিয়োগ হয়েছে। আগামী মাসে মাছগুলো বিক্রির চিন্তা করছিলেন। কিন্তু বুধবার দিবাগত রাতে কতিপয় মহল দুইটি মৎস্যপ্রকল্পে বিষ ছড়িয়ে দেয়ায় বৃহস্পতিবার সকালে ঘেরের বেশিরভাগ মাছ মরে গেছে। এতে তাঁর প্রায় দুই লাখ টাকার ক্ষতিসাধন হয়েছে বলে দাবি করেন ভুক্তভোগী ফরিদুল।

মৎস্য প্রকল্প মালিক ফরিদুল আলম অভিযোগ করেছেন, তাঁর সঙ্গে একই এলাকার জকরিয়ার ছেলে এমরান, শেফায়েতুল ইসলাম ও নুরুল আলমের ছেলে ইব্রাহিমদের মধ্যে জমি সংক্রান্ত বিরোধ আছে। তাঁর ধারণা ওই বিরোধের জেরে অভিযুক্তরা এই ঘটনাটি সংগঠিত করেছে। বিষয়টি তিনি বৃহস্পতিবার সকালে চকরিয়া উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তাকে জানিয়েছেন। এ ঘটনায় আইনের আশ্রয় নেবেও বলে জানিয়েছেন ক্ষতিগ্রস্থ মৎস্যপ্রকল্প মালিক ফরিদুল আলম।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •