মিজানুর রহমান ,কুতুবদিয়া :

কক্সবাজারের কুতুবদিয়া দ্বীপের তাবলেরচর এলাকায় ২ দফায় ৩৮ কোটি ৭৭ লাখ টাকা ব্যয়ে বায়ু বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপিত হয়। প্রকল্পের অধিনে সংযোগ নেয়া প্রায় ৫৫০ গ্রাহক। তারা সারাদিনে এক ঘন্টাও বিদ্যুৎ পান না। কিন্তু মাস শেষে বাড়তি বিল আসে বলে অভিযোগ রয়েছে। আলো বিহীন এ বিদ্যুৎ প্রকল্প স্থাপনে ‘প্যান এশিয়া পাওয়ার সার্ভিসেস্ কোম্পানি লিমিটেড’ নামক একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান এ খাতে বরাদ্দ দেয়া অর্থ সম্পুর্ণ অপচয় ও লুটপাট করেছে বলে ভুক্তভোগিরা অভিযোগ করেছেন।

সরেজমিনে দেখা যায় দ্বীপ উপজেলার আলী আকবর ডেইল ইউনিয়নের বিদ্যুৎতের এ চিত্র উঠে আসে।

স্থানীয়রা বলেন, বিদ্যুৎ নেই, কিন্তু মাসের শেষে বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ করতে হয়। আমাদের সেবা না দিয়ে, ব্যাটারী চালিত অটোরিকশার গ্যারেজে বিদ্যুৎ সরবরাহ করে বলে অযোগ করেন তারা।

বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড কুতুবদিয়া উপজেলা কার্যালয়ের আবাসিক প্রকৌশলী মোঃ আবুল হাসনাত বলেন, কোনো ভুতুড়ে বা বাড়তি বিল করেনি। ভুলে এরকম হয়ে থাকলে তা সংশোধন করা হবে। তবে বিদ্যুৎ বাড়তি বিলের বিষয়টি তিনি অস্বীকার করেন।

তিনি আরও বলেন, বাতাস থাকলেই বিদ্যুৎ সরবরাহ করতে পারি, আর না থাকলে বিদ্যুৎ সরবরাহ করতে পারি না বলেই গ্রাহকরা এসব মিথ্যা অভিযোগ করেন।

উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক ও আলী আকবর ডেইল ইউপি চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা নরুচ্ছফা বিকম বলেন, বায়ু বিদ্যুৎ ব্যবস্থা আমাদের জন্য গজব। জনগনকে বিদ্যুৎ সেবা না দিয়ে আবার মাসের শেষে গ্রহকদের কাছ থেকে ভুতুড়ে বিলসহ এদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন রকম অভিযোগ পেয়েছি। তবে জাতীয় গ্রীড লাইন থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হলে এতে কুতুবদিয়ায় গড়ে উঠবে নানা ধরণের শিল্প কারখানা ব্যাপক উন্নয়নের আওতায় আসবে এই সাগরদ্বীপ।

কুতুবদিয়া থানার ওসি মোঃ জালাল উদ্দীন বলেন, বিদ্যুৎতের কারণে অফিসিয়াল কাজে ব্যাঘাত ঘটছে। ঠিক মতো কাজ করা যাচ্ছে না।

এ ব্যাপারে, স্থানীয় সাংসদ আশেক উল্লাহ রফিক বলেন, বিদ্যুৎ বিহীন দ্বীপ কুতুবদিয়া। খুব সীমিত পরিসরে জেনারেটরের মাধ্যমে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয়। তারপরেও সরকারের পক্ষ থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী পরিক্ষামুলক ভাবে বায়ু বিদ্যুৎ প্রকল্প স্থাপন করেছিলো।

আগামী ২০২১ সালের মধ্যে জাতীয় গ্রীড লাইনের মাধ্যমে বিদ্যুৎ সংযোগ করার জন্য সরকার প্রদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন। ইতোমধ্যেই সাবমেরিন ক্যাবলের মাধ্যমে জাতীয় গ্রীড লাইন থেকে কুতুবদিয়া উপজেলায় বিদ্যুৎ সরবরাহের জন্য আন্তর্জাতিক টেন্ডার আহবান করা হয়েছে।আমরা আশা করছি, ২০২১ সালের ১৬ ডিসেম্বরে বিজয় দিবসের দিনেই কুতুবদিয়ায় বিদ্যুৎতায়নের কাজ উদ্ভোধন হবে বলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা দিয়েছেন। যদি সাবমেরিন ক্যাবল স্থাপনের মাধ্যমে কুতুবদিয়ায় বিদ্যুতের জাতীয় গ্রীড লাইন থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হলে কুতুবদিয়াবাসীর দীর্ঘদিনের একটি প্রাণের দাবি পূরণ হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •