মোঃ জয়নাল আবেদীন টুক্কু :
বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির বাইশারীতে এক কিশোরের মৃত্যুকে ঘিরে নানা রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে। নিহত কিশোরের নাম মোঃ সোহেল (১২) পিতা জাগের হোসেন। শুক্রবার ১৮ ডিসেম্বর সকাল সাড়ে ৭টায় তোফান আলী পড়া গ্রামস্থ নিজ বাড়ীতে এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয়রা জানান মা ও বড় ভাইয়ের সাথে অভিমান করে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে হাতাহাতি হয়। এসময় কিশোর সোহেল মাটিতে পড়ে যায়। এ পর সে অজ্ঞান হয়ে পড়লে প্রথমে বাইশারী বাজার সেখানে অবস্থার অবনতি হলে ঈদগাঁওতে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার সোহেলকে মৃত ঘোষণা করেন।

সেখান থেকে নিহতের বড় ভাই মোঃ তারেক ও তার মা প্রশাসনের ভয়ে মহেশখালী সৎভাই আব্দু সমদ এর কাছে নিয়ে যায় দাফন করার জন্য। এ খবর স্থানীয় মেম্বার আবু তাহের বাইশারী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে অবিবাহিত করেন। পুলিশ তদন্ত কেন্দের ইনচার্জ, এনামুল হকের নিদের্শে ইন্সপেক্টর সজিব বড়ুয়ার নেতৃত্বে পুলিশ মহেশখালী থেকে নিহত সোহেলের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালে প্রেরণ করেন। শনিবার (১৯ ডিসেম্বর) বিকালে ময়নাতদন্ত শেষে বাইশারী নিজ এলাকায় বিকাল ৪ টার সময় জানাযার নামাজ শেষে স্থানীয় কবরস্থানে দাফন করা হয়।

ঘটনার বিষয়ে ওয়ার্ড মেম্বার আবু তাহের বলেন, প্রতিনিয়ত তাদের পরিবারে ঝগড়া লেগেই থাকত কয়দিন আগেও তাদের পরিবারে গিয়ে ঝগড়া মিমাংসা করে দিয়েছি। কিশোর সোহেলের মৃত্যুর জন্য তার মা ও তার বড় ভাই দায়ী। এ বিষয়ে নাইক্ষ্যংছড়ি থানার অফিসার ইনচার্জ মুহাম্মদ আলমগীর হোসেন বলেন.নিহতের পরিবার বলছে গাছ থেকে পড়ে গিয়ে এ ঘটনা ঘটে। এর পরেও তিনি খবর পেয়ে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠান। থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা রুজু করা হয় বলে জানান। তবে এলাকায় এ মৃত্যু নিয়ে হত্যা না দূর্ঘটনা এ নিয়ে সৃষ্টি হয়েছে নানা রহস্য ও আলোচনা-সমালোচনার ঝড়।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •