অনলাইন ডেস্ক : কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার কয়া মহাবিদ্যালয়ে স্থাপিত বিপ্লবী বাঘা যতীনের ভাস্কর্য ভাঙচুর করেছে দুর্বৃত্তরা। শুক্রবার (১৮ ডিসেম্বর) ভোর রাতের কোন একসময়ে এ ঘটনা ঘটে।

কুমারখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রাজিবুল ইসলাম খান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। ঘটনার পর সকালে ভাস্কর্য ভাঙচুরের স্থান পরিদর্শন করেছেন ইউএনও রাজিবুল ইসলাম খান।

প্রসঙ্গত, মাত্র ৩৬ বছর বয়সে ১৯১৫ সালের ১০ সেপ্টেম্বর ইংরেজ বাহিনীর সঙ্গে সম্মুখযুদ্ধে নিহত হন বিপ্লবী বাঘা যতীন।

ব্রিটিশ ভারতে বাঙালিসহ ভারতবর্ষের সব জাতিসত্তার স্বাধীনতার সংগ্রাম ছিল এক সূত্রে গাঁথা। প্রধান লক্ষ্য ছিল ইংরেজদের বিতাড়িত করা। আর ইংরেজ ঔপনিবেশিক শাসকদের বিরুদ্ধে যারা স্বাধীনতার জন্য সশস্ত্র সংগ্রাম করেছেন, যাদের আত্মদান ইংরেজ শাসকদের বুকে কাঁপন ধরিয়েছে, তাদের অন্যতম বিপ্লবী যতীন্দ্রনাথ মুখোপাধ্যায়। যিনি ‘বাঘা যতীন’ নামে বেশি পরিচিত। দেশমাতৃকার প্রতি গভীর ভালোবাসা ও দায়বদ্ধতা, অপরিসীম সাহস ও শৌর্যবীর্য তাকে অগ্নিযুগের বিপ্লবীদের প্রথম সারিতে স্থান দিয়েছে।

এর আগে, গত শুক্রবার (৪ ডিসেম্বর) রাতের কোনো এক সময় কুষ্টিয়া শহরের পাঁচ রাস্তার মোড়ে পৌরসভার উদ্যোগে প্রায় ৩০ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মাণাধীন বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যের মুখ ও হাতের অংশ ভাঙচুর করে দুর্বৃত্তরা। পরে সিসি ক্যামেরা দেখে দূর্বৃত্তদের চিহ্নিত করে পুলিশ।

ওই দিনেই সিসি ক্যামেরার ফুটেজ প্রকাশ হয়েছে। পুলিশ আনুষ্ঠানিকভাবে ফুটেজ প্রচার না করলেও ৫৫ সেকেন্ডের ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়। এর পর পুলিশ সিসিটিভির ফুটেজ দেখে ভাস্কর্য ভাংচুরের ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তার করেছে।

-পূর্বপশ্চিমবিডি

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •